হয়তো নীরবে জেগে থাকে মনের গহীনে তিমিত চাঁদ
অবেলায় জোনাকী জ্বলে
নিষ্ঠুর বাতায়নে তোমার সুবাস হারায় নিদ্রা ভেঙে ।

হয়তোবা বেখেয়ালে হঠাৎই চড়ুইয়ের ডাকে ঘুম ভাঙে
আবার আড়মোড়া দিয়ে বিলীন হই তোমার কোমলতায় ।

যদিও এক টুকরো বসন্তে কী-বা এসে যায়
আসন্ন গ্রীষ্মের খরতাপে হৃদয় পুড়ে
বর্ষায় ভিজে একাকার লোনা জলে ।

স্রেফ বৃষ্টির লুকোচুরি দেখি নীরবে,
সতেজ দুপুরে পায়ে পায়ে আনাগোনা
নিজের বিবেকে নচেৎ বিকৃত মননে
ঠিক একঝাঁক নির্যাসে পলাতক পিছু পিছু ৷

ফের আলতো করে ছুঁই ঐ অদৃশ্য ভ্রুণ
খুব করে হাত বোলাই অদেখা চিবুকে
জানি না কে বা কারা জন্মদাতা
জানি শুধু নিষ্পাপ তুমি নিখুঁত কোমল ৷