ঈশ্বরের দেওয়া সেরা উপহার,সে তো মা ।
পূ-মানুষ, আজ তুমি প্রকাশে দণ্ডায়মান
ক্ষমতার বীর্যে শীর্ষে
তুমিই তো নারী মাংসো ভোজী।
আজ তুমি নিজে স্বয়ং ঈশ্বর এ ধরাতে।

চলনা ফিরে যাই তোমার জন্মের শুরুতে
আজ যে পথ তোমার কাছে গণিকা নারী
দুর্বল সেই পথেই প্রথম এ পৃথিবীতে তুমি।
ভূমিষ্ঠে তোমার চিৎকার শুনেছে সবাই
মা নিয়েছে বুকে তুলে।
পূ-মানুষ, আজ যে স্তন নিয়ে কামনার খেলায়
একদিন তাই তো ছিল তোমার প্রাণ খাদ্য।

দুর্বল হাত পা নাড়াবার চেষ্টায় কান্না
প্রসাব পায়খানা ভরাতে বিছানা
বমি আসা ভানে ঘৃণায় নেই সবাই মুখ ফিরিয়ে
আর মা, সে তো ছুটে এসে পয়পরিস্কার করে
তোমায় বুকে নিয়ে, স্তন দিত তুলে তোমার মুখে
স্বর্গের অমৃত পানে বাড়াতে তোমার দেহ।

পূ-মানুষ, জীবনের প্রথম বলতে শেখা শব্দে নারী ছিলো মা
আজ, তোমার কারুকাজ করা কথার মায়া জালে
নারী দেহ মন দিয়েছে,
সঁপেছে তোমার পদ যুগলে।
বে-আব্রু হয়েছে তোমার ইচ্ছাতে,
তোমায় খুশি করতে।
হায়েনার হিংস্রতায় ক্ষত বিক্ষত দেহ মন,
ভালবাসার নামে ধর্ষণ।
সতীত্ব হারায়েছে নারী ,
কুলটা, কলঙ্কিনী, অসতী
সমাজের মান দণ্ডে দণ্ডিত নারী,
পূ-মানুষ অতুলনীয় তুমি ।

পূ-মানুষ, তুমি যদি কোন নারীকে অসম্মান করো
তাহলে একবার ভেবে দেখ
তোমার মা বোন মেয়েকে কেউ না কেউ
কারো না কারো কাছে প্রকাশ্যে না হয়
গোপনে অপমানিত লাঞ্ছিত
হয় তো তোমার নববধূ ধর্ষিত ,
যে বুকে শান্তিতে রাখবে মাথা
সে স্তন যুগলে হায়েনার হিংস্রতার
থাবার শুকনো ক্ষত।
যে জমিনে বুনবে বীজ দ্বিতীয় জন্মের আশায়, অক্ষত কি আছে
তোমার স-জাতীদের ভালবাসায়।

পূ-মানুষ নারীকে বাঁধবে কি দিয়ে,
নারীকে শাসন করবে কি দিয়ে ?
পুরুষ অঙ্গের ক্ষমতা,
দেহের শক্তি দিয়ে,
ধর্ম,সমাজের দোহাই দিয়ে।
না কি ভালবাসা, সন্মান দিয়ে।
মানব সভ্যতার অন্তরালে
আদিম অভ্যাস পরিহার করি
আগামীর পূ-মানুষ জন্মকে পবিত্র করি
এক একটা নারীকে ভাবি মা
তাহলেই হবে এ ধরা স্বর্গ
পূ-মানুষের পবিত্র দৃষ্টিই ,
পবিত্র নারী হবে পবিত্র মা ।
পূ-মানুষ, ঈশ্বরের দেওয়া সেরা উপহার নারী,
সে তো মা ।