১)
আশৈশব দুরন্তপনা, আপাত স্বাধীন সময়ের
গোল্লাছুট অথবা প্লেস্টেসনের বোতাম, টিপে টিপে
বাড়ে বালকের বয়স, ঐকিক নিয়মে চলে, জীবন
মার-মার কাট-কাট সময়ের প্রতিভূ, জ্বলন্ত সিগ্রেটে
আর সরস আড্ডায়, স্কুল-মাদ্রাসা-কলেজ, অত:পর
স্বাধীনতা হারায় প্রাপ্ত সনদে, শান্ত বালক ঝুলে থাকে
নয় বারোয়, এফোর সাইজে কাটা কাঁচের জানালায়
একটা আয়ের উৎস খুঁজে পাবার আশায়...

২)
বালিকার অফুরন্ত আকাশ, নীল আকাশ
সূর্যোদয় হতে সূর্যাস্ত অবধি, শান্ত স্নিগ্ধ
সময় হাটে, হাটে বালিকার বয়স, শরীরী
আকাশ ছোট হয়, ছোট হতে থাকে, অবিরাম
স্বাধীন অস্তিত্ব ঢেকে যায়, নারীত্বে
যেন ছুঁয়ে না যায় লাম্পট্য, শ্যেনদৃষ্টি
ঢাকা সুতোয় আর ছাতায়, চেষ্টাটা শুধু তারই।
অত:পর আকাশ আটকে যায়, নয় বারোয়
এফোঁড় সাইজে, কাটা কাঁচের জানালায়
ঝুলে যায় স্বাধীনতা, ধর্মের নামে কুমারীত্বের কসমে।

৩)
লক্ষ কষ্টের গালিচা পাতা, অসুর সময়ে
মহাকালের রক্ত বন্যায়, লাখো প্রজাপতির
বিদীর্ণ আর্তনাদে, আকাশ ভারী হয়
বৃষ্টি ঝরে... ঝরে..., ন’মাসের বোবা কান্নার
জঠর ফুড়ে হেসে ওঠে শিশু স্বাধীনতা, মুক্তির স্বাদ
পাওয়ার আগেই কলঙ্কিত হয় ইতিহাস...
শোষক হয়ে ওঠে শাসক শকুনেরা, ঝুলে যায়
স্বাধীনতা বদ্ধ ঘরের নয় বারোয়, এফোঁড় সাইজে
কাটা কাঁচের জানালায়, থাকে যুবতী আটকে
ঘরের কোণায়, পাঁচ বছরে যুবক আটকায় দলীয়
চেতনায় আর দলীয় আয়ের কদর্যতায়...