তুই কি আসবি না বাবা ? ফাগুন যে বয়ে যায় !
দেখ উত্তরে বাতাস কেমন করে আছড়ে পড়ে কৃষ্ণচূড়ার গায় !
ফুল গুলো হায় অবিরাম কেঁদে যায়
ডাহুক এখনও ডাকে ঝোপ ঝাড়ের ছায়
আমি আর কাঁদব না বাবা তুই ফিরে আয়, ফিরে আয় ।

তোর বশির হাট আদর্শ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশে পাশে
ভুঁইফোঁড় কিনডার গারটেনের ছড়াছড়ি
তোর প্রাণের বাংলা ভাষার বুকের উপর
এক অনাহূত বিদেশির উদ্দাম নৃত্য !
অসহায় বর্ণমালা কাতর নয়নে চেয়ে আছে তোর পথ পানে !
তুই কখন আসবি বাবা ? কখন আসবি ?

এমনি করে দিনে দিনে তোর প্রিয় বাংলা ভাষা
বিস্মৃতির অতল তলে হারিয়ে যাবে
আমাকে আর মা বলে ডাকবে না কেউ
আর ফুটবে না ফুল, হাসবে না বসন্ত
আমার কোলে মাথা রেখে কেউ শুনবে না ঘুম পাড়ানি গান !
আমার নয়নে নয়ন রেখে কেউ বুঝবে না বুকের ব্যথা !
বড় দাগা এই মনে; তোর রক্তের প্রতিটি ফোঁটার কৈফিয়ত চাই আমি
তোর রক্তের কসম বাবা ! যেমন করেই হোক
দুশ মন্তের কালো থাবা থেকে বাঁচাবই বাংলা ভাষার সম্মান।।