লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ সেপ্টেম্বর ২০২০
গল্প/কবিতা: ৫২টি

সমন্বিত স্কোর

৩.৪৪

বিচারক স্কোরঃ ১.৯৪ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৫ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - ঋণ (জুলাই ২০১৭)

নেপথ্য কাহিনী
ঋণ

সংখ্যা

মোট ভোট ২৫ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৩.৪৪

খন্দকার আনিসুর রহমান জ্যোতি

comment ১৩  favorite ০  import_contacts ৮৬৭
গোধুলী রঙ শাড়ীর আঁচোল
লাল টিপ ঘোমটা
শেষ বিকেলের সূর্যটা
জানিয়ে দিল বিষন্নতার ইঙ্গিত

বিক্ষুদ্ধ লাভার মত
নিশীথে জ্বলে উঠে হায়নার চোখ
ক্রমশঃ গভীর হয় গহীন অরণ্যে
পশুরাও তৎপর শিকারের জন্যে
ভীরু মনের তসবীতে ময়না
রাতের প্রহর গোনে

মরুর বুকে শুকায় মুকুলের কষ
তাপ খাওয়া বাতাসের চোখে
রংধনু জলের উঠান
আসে কিছু যুবতী শালিকের মেয়ে
হাটু জলে নেমে ঝটপট নেয় নেয়ে
ভুল করে তখন বর্ষার মুয়ুর গুলো
পেখম মেলে মরিচিকা জলের ভেতর

ঠিক তেমনই ভুল করে এক দিন
কিছুটা স্বচ্ছল জীবনের আশায়
সরলা গ্রামের এক দরীদ্র ময়না
সুদখোর মহাজনের কাছে করেছিল ঋণ

সেই থেকে স্বস্থিতে থাকেনি কোন দিন
কেটে গ্যাছে কত বিনিদ্র রজনী
হারিয়ে ফেলেছে সহায় সম্বল
চোখের নদীতে নেমেছে ঢল
বয়ে গ্যাছে কিস্তি আতঙ্কের কালো বন্যা

তবুও আসে ভোর কাচা সোনা রোদ
স্বপ্নের সোনা দিন বুকে
হাঙ্গরের পেটের ভেতর করে বসবাস
সুদ খোর মহাজন চায় পূর্ণিমা চোখে

নিরুপায় স্বলজ্জ রাতের ময়না
আধারের আঁচলে লুকিয়ে সন্মান
মেলে দিসে বসে কিস্তির দোকান
রাত ভর বিকিকিনি শেষে
পুশিয়ে নেয় আঁচলের গিটে
ঋণাত্বক জীবনের কিছুটা আকাল

কেননা ভোরের ডানায় ভেসে
ঋণের সমন এসে
কিস্তির টাকা গুনে নেবে
আগামী দিনের সকাল

আসলের মাশুল দিতে ক্ষুদ্র ঋণের ফাঁদে
হারিয়ে ফেলেছে সে নিজস্ব অবনী
কালের শ্বেতপত্রে এভাবেই লেখা থাকে
একজন ঋণগ্রস্থ ময়নার নেপথ্য কাহিনী

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement