নিঃশ্বাসে তোমার বেঁচে থাকার আত্মবিশ্বাস
সবুজ ক্লোরোফিল পাতায় প্রাণের শক্যতা
মেহগনী দেবদারু কিম্বা পাইন বট বৃক্ষ তুমি
কখনো আকাশ ছুঁতে চাওনা জানি
করোনা কোনও অভিযোগ আত্ম অভিলাষ।

বোবা মুখে বলতে পারোনা কষ্টের জ্বালা
চাওয়া পাওয়ার প্রশ্নে শুধুই দেবার পালা
নীরবে বিলিয়ে যাও সঞ্জীবনী সুধা
মায়ের মমতায় মিটিয়ে পেটের ক্ষুধা
বাঁচিয়ে রেখেছ অনন্তকাল পৃথিবীর জীবন।

লতা গুল্ম হরিৎ পাতা বৃক্ষে ভরা সুন্দর বন
শ্রেণী গোত্রে বসবাস করে তোমারই স্বজন
দিয়ে যায় তারা জীবনের মুঠি মুঠি আশ্বাস
দুঃখ শুধু মানুষ দেয়না-কো তার প্রতিদান।

অকৃতজ্ঞ কিছু মানুষ নামের পিশাচ শয়তান
স্বার্থের লোভে অবাধে করে তোমাকে নিধন
বিরুপ কোরে তোলে স্বাভাবিক সুস্থ্য জীবন
তোমার জন্য বিশ্ব জুড়ে আজ বৈরী প্ররিবেশ
প্রতিনিয়ত মরছে মানুষ কষ্টের হয় না শেষ।

বৃক্ষ তুমি দুঃখ করোনা আর
কেঁদো-নাকো ধর্ষিতা নারীর মতন
তোমার কাছে শপথ নিলাম এখন থেকে
নিরাপত্তার চাদরে রাখবো তোমায় ঢেকে।

মুকুলিত দেহ পল্লব কিম্বা শাখা প্রশাখায় যেন
কামড় বসাতে নাপারে হায়নারা আর কখনো
আঁচড় দিতে না পারে ধারালো করাতের দাঁত
তোমার দেহে ছড়াবে শিশির হেমন্ত সারারাত
জোছনা বিলাবে দীপ্তিমান মুঠো মুঠো আলো
বৃক্ষ তুমি ভেবনা আর ঘুচবে আঁধার কালো।

সারাবিশ্বে জলবায়ু দুষন দুর্যোগপূর্ণ পরিবেশ
অবাধ অতিবেগুনী রশ্মির দুরাচার অনুপ্রবেশ
পৃথিবীর ফুসফুস জুড়ে আজ ফুটো ওজন স্তর
বৈরী আবহাওয়া ঘটে যায় সাইক্লোন ঘুর্ণিঝড়
রুখে দিবোই সুনামি প্লাবন কিম্বা জলোচ্ছ্বাস
অজানা রোগে হবেনা আর মানুষের প্রাণ নাশ
তোমার তরে প্রত্যয় এ আমার দৃঢ় অঙ্গিকার।

তোমায় যারা হত্যা করে তারা পাবেনা আর মাপ
দেবো নুরলদীনের মতোই আমি গলা ছেড়ে হাক
পরিবেশ বাঁচও, জীবন বাঁচাও, ঘুচাও মঙ্গা খরা
এ্যালা জাগো বাহে….কোণ্টে গেইলেন তোমরা।