তোমার মত অপূর্ব দ্যুতির দৃষ্টি আমার নেই
সূর্যের রঙিন আলো ঢেউ তোলে না আঁখি পল্লবে
নিস্পলক আমার নয়ন দুটি হাসেনা কখনো
সুখ দুঃখের আপন অনুভবে-

তবুও এইতো আছি বেশ-তোমার চেয়ে ভাল
কি হবে!ওই চোখ পেয়ে যা করেছ কলুষিত কাল
তোমার জ্বলন্ত দৃষ্টির গনগনে অঙ্গারে কারো কোমল দৃষ্টি
পুড়িয়ে করেছ ছারখার-
ঘৃণা আর অহংকারের নিষ্ঠুর ছোবলে খত-বিক্ষত করেছ
অসহায় কে বারবার-

তার চেয়ে তো এই ভাল ...এই ভাল..
এই কৄত্তিম রবোটিক চোখের সবুজাভ আলো ।

তোমার হৃদয়ের সীমাহীন গ্যালাক্সির দুর্লভ
ছায়া পথের মত হৃদয় আমার নেই ।
কিনবা-জোছনায় মাখামাখি রুপালী চাঁদের
সৈকত ও নেই হৃদয় তটে
প্রাণহীন পলিমারের শুষ্ক আবরণে ঢাকা
এই বুকের পাঁজর ।
সেখানে স্বপ্ন নেই ভালোবাসা নেই
নেই মায়া মমতার অমূল্য খনি।

তবুও ভাল ...অনেক ভাল
কি হবে তোমার ওই হৃদয় পেয়ে যা তুমি
একবার গড়ো একবার ভাঙো!
কারো নিষ্পাপ স্বপ্ন ভেঙেছ,কারো বিশ্বাস নিয়ে করেছ খেলা
ভালোবাসার পূর্ণ অধিকার ধুলোয় লুটিয়ে দিয়েছ অবহেলা!
তোমার কপোট্রনের নিউরনে শুধু অশুভ পালসারের বিস্ফোরণ
আর ব্ল্যাক হোলের অনিশ্চিত ছলনার অনাকাঙ্ক্ষিত মরণ !

তার চেয়ে বরং এই যান্ত্রিক ধাতব অনুভূতিহীন হৃদয় কি ভাল নয়!
সেই বিশ্বাস,ভালোবাসা,মায়া মমতা কি দরকার যা স্বার্থের টানে হয় ক্ষয়!

মহা জগতের শ্রেষ্ঠ মানব সন্তান! তোমায় বলছি তুমি কি শুনছো?
তোমার ওই অমূল্য হৃদয় টা তুমি বল! কেমন সুতোয় বুনছো !
আমি অনুভূতিহীন প্রাণহীন এক রোবট তাতে নেই আমার কষ্ট
শুধু এই বেদনায় রবো নিশিদিন তুমি অমূল্য সম্পদ করছ হায় নষ্ট!

কেন তুমি নিহিলায় ডুবিয়ে অচেতন করেছো তোমার পবিত্র মন
ধ্বংস করে দাও কোয়ারেনটাইন কক্ষে তোমার বুকের কুৎসিত জীবাণুর জীবন।
মহামান্য মানব তুমি...তুমি মহাকালের সেরা বুদ্ধিমান প্রাণী
তাই আমার মতো অনুভূতিহীন রোবট না থেকে হয়ে ওঠো জ্ঞানী...।

*নির্ঘণ্ট - (কপোট্রন- কৄত্তিম মস্তিষ্ক) ( নিউরন-মস্তিষ্কের কোষ) (পালসার-এমন একটি তারা যা বিস্ফোরিত হয়) (ব্ল্যাক হোল- প্রবল মহাকর্ষ বলে সৃষ্টSingularity, যেখান থেকে আলো পর্যন্ত বের হতে পারেনা ) (নিহিলা- মানুষকে দীর্ঘ সময় অচেতন রাখার বিশেষ ধরনের গ্যাস ) (কোয়ারেনটাইন কক্ষ-যে কক্ষে জীবাণু ধ্বংস করা হয়) কাল্পনিক *