লাগাতার বর্ষণে ক্লান্ত হয়ে যায় রাতগুলো
আস্তে আস্তে ঢুকে পড়ে নক্সাতোলা বাক্সে
আমি সযতনে তা বুকে তুলে নেই আলিঙ্গনে
যেখানে ঘুমিয়ে রয় আমার বিমূর্ত মূক রাতেরা।
কখনও মৃত্যু আলিঙ্গনে শিহরিত হতাম
আবার কখনও মনে হত একাকী সমুদ্র তীরে
যেথা রাতের আঁধার গুঞ্জন করে শোনায় একাকীত্বের সুর
কখনও এলোমেলো বাতার নিঃসঙ্গতা দূর করতে চায়
যখন বিভ্রমের প্রগাঢ়তা অসহনীয় ভাবে বাড়তে থাকে।
উগ্র রাসায়নিক গন্ধতেও মনে হয় তোমার উপস্থিতি
বুক ভরে শ্বাস নিতে থাকি বিভোর হয়ে
তবুও বায়ুশূন্য বুকের ভুল ভাঙে না
আমি স্বপ্নে হারিয়ে যেতে পারি না
অগত্যা যেতেই থাকতে হয় আমাকে সারাটা রাত
মাঝে মাঝে নক্সাতোলা বাক্স থেকে বের করে নেই
একটু একটু করে ব্রহ্মচারী রাত
হোক তবে আরেকটু দীর্ঘায়িত বিভ্রমের জাল
যেখানে মিথ্যের স্বপ্নের ঠাস বুনোটেও বন্দী হতে ভাল লাগে
বাস্তবে যেখানে তুমি নেই,
কল্পনায় তো সেখানেই তুমি আছো!
কখনও আমার রাত হয়ে,
কখনও একটু আলতো ছুঁয়ে!
যদি কথা বলতে উচ্ছে করে তাহলে মৃত্যুপ্রহরে এসো
ভ্রমরের ন্যায় কালো কাজলে তোমার চোখ সাজাবো
পায়ে ছুঁয়ে দেব আলতায় রক্তিম রঙের অনুরাগ
এরপর তুমি চলে যেও, আমি বাঁধা দেব না।
আমি জানি সমূদ্রের ঐ এলোমেলো বাতাসই তুমি
আমাকে বিমোহিত করে প্রতিক্ষণে সান্ধ্য আলিঙ্গনে
আমার আত্মা এতে পরিতৃপ্ত হয় না
আমি সঙ্কুচিত হতে থাকি, শূন্য হওয়া পর্যন্ত
শূন্য হোক অথবা বিভাজিত-
কিই বা মূল্য আছে এর?
ভোর হওয়া পর্যন্ত কোন উন্মাদনা নেই সাগর তীরে
তোমার অপেক্ষায় থেকে থেকে
ওরাও আজ জেগে ওঠায় অপেক্ষা