টকটক লাল রক্তের বইন্যায়
দ্যাশটারে গোসল করাইয়া দিয়া ভাবছিলাম -
এই মাদি পবিত্র হইবো - হয় নাই।
সবুজ পতাকার অন্তরের মইধ্যে
গণগনা সূর্য আইক্যা দিয়া ভবছিলাম -
সব আন্ধার কাইট্যা যাইবো - কাডে নাই।

দুই-একখান যা ক্যানসারের জীবানু ছিল এই জমিনে;
হেইগুলান আইজ বংশ বাড়াইতে বাড়াইতে
সারা দ্যাশ ছাইয়া ফ্যালাইছে।
ছোড ছোড ক্যানসারের বাচ্চারা আইজ
ওয়াঁ ওয়াঁ করতে করতে -
মোগো টুটি চাইপ্যা ধরতে চায়!
মোরা কিছুই করবার পারিনা!

আর মোগো পোলাপানেরা!
যাগো লাইগা এল.এম.জি হাতে -
নয়ডা মাস ধাবড়া-ধাবড়ি করছি,
কতা কইছি বুলেটের লগে,
হাত ভিজাইছি; জানের দোস্্তের বুকেরত্ন ফিন্কি দিয়া ছোডা রক্তে।
হেই পোলাপানগুলান, হেই মর্দ্দা জুয়ানগুলান!
আইজ স্বাধীনতার কেচ্ছা হোন্লে ?!
কান মোচড়াইতে মোচড়াইতে সইরা যায়,
ডিশের চ্যানেল অন্ কইরা, চক্ষু বড়বড় কইরা -
মাধুরী-ম্যাডোনার মাজা-ঢুলাইন্যা ন্যাংটা নাচোন দ্যাহে
আর মারহাবা মারহাবা কইয়া চিক্কুর পারে।
স্বাধীনতার কতা হ্যাগো ভালো লাগেনা,
গল্প গল্প মনে হয়।

ওরে, স্বাধীনতার মর্ম তোরা বুঝবি ক্যামনে!
মোঁয়া আইন্যা দিছি, মচ্মচাইয়্যা খাইতে আছস্,
ফুরাইয়া গ্যালে বুঝবি মো্ঁয়ার স্বাদ!

আইজ এ্যাত্তোগুলান বছর পরও যহন দেহি -
চাঁন-তারা আকইন্যা টুপি পইরা
হগুনগুলান্ ঘোরে আমার দ্যাশে;
বুকের মইধ্যে ছ্যাৎ কইরা ওডে তান্ডবের ভয়ে!
আর তোরা হ্যাগোর ভন্ডামীর লেকচার -
হজম কইরা ফ্যালাস ঘুমের বড়ির ল্যাহান!

যহন দেহি হেই বেজম্মাগো পয়দা করা কুত্তাগুলান
তোগো বইনেগো ইজ্জত লইয়া মাতম করে,
খাবলাইয়া খাবলাইয়া খায় মোগো স্বাধীন শরিলডা!
রক্তের মইধ্যে তুফান ওডে,
ইচ্ছা করে আবার ঝাপাইয়া পড়ি - পারিনা!
মরার বয়স আর পঙ্গুত্ব আকড়াইয়া ধরে।
আর তোরা!
তোরা তহন গাঞ্জার কল্কিতে দম দিয়া -
রাজা-বাদশা সাজ্স,
ডাইলের বোতলে চুব্নি খাইয়া -
দ্যাখোস রঙ্গিন হপ্পন,
্তুআমার সোনার বাংলা' গান ভুইল্যা -
্তুওলে ওলে' আর তুহাম্বা হাম্বা' কইরা
দামড়া বাছুরডার লাহান ফাল পাড়স্!
তোগো শরিলের গিডেগিডে জং ধইরা গ্যাছে,
কাল হইছে রক্ত আর মাথা খাইছে নেশায়!

বুঝবি!
যেইদিন ওরা তোগো মা-বইনেরে ছিড়া-খাইয়া
তোগো হাত-পা'র রগ কাটবো, নরলিতে চালাইবো খুর;
হেইদিন বুঝবি!
ডিশের নাচ্ন আর ডাইল-গাঞ্জার মজা কারে কয়!

এহনও সময় আছে বাপ!
রক্তের মইধ্যে আগুন জ্বালাইয়া, ঝাক্কি দিয়া ওঠ্!
রক্ষা কর তোগো উত্তরাধিকারে পাওয়া
এই স্বাধীনতা।