মাগো তুমি দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে মাথায় হাত বুলিয়ে বলতে,
বাবারে তোকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন! একদিন তুই
বড় হবি দুঃখের দিনে একটু সুখের
হাসি ফোটাবি।

মাগো তুমি অনেক কষ্ট করেছ আমাকে নিয়ে,
তোমার এই কষ্টের সময় এবং দিনগুলো
আমার জীবনের ভিলাতে যত্নে রেখেছি।

মাগো একটি বারের জন্য হলেও কষ্টের ছাপ
আমাকে স্পর্শ করতে দাওনি তুমি।
মাগো তুমি নিজের কষ্টের কথা না ভেবে
একমাত্র ছেলেকে নিয়ে তোমার ভাবনা ।

মস্ত বড় হবি, নিজেকে অনন্য করবি
এই ধরণীর শত কোটি মানুষের মাঝে।
নিজের সৌভাগ্য টাকে স্বর্ণাক্ষরে
লিখে যাবি আপন মনে।

জানতাম, মা কখনোই তোমার
জমে থাকা কষ্ট আমায় বলবে না।
শুধু এটুকুই বলবে, "বাবা
লেখাপড়াই তোর একমাত্র সাধনা"

আর বলবে দুঃখী মানুষের পাশে দাড়িয়ে
অর্থ দিয়ে না পারলেও মুখের
একটু খানি কথা দিয়ে হলেও,
হাসি ফুটানোর চেষ্টা করবি।

একে একে জীবনের সব কষ্ট অতিক্রম করলাম,
স্রোতহীন নদীতে চলা এক ছোট নৌকার মাঝি হয়ে।

স্বাবলম্বী হওয়ার গৌরবময় স্বপ্ন ছিল চোখে।
কিন্তু ঐ স্বপ্নই ছিল মায়ের চোখে উজ্জ্বল নক্ষত্রের মত।

কিন্তু মা তোমার দোয়াই আমাকে
আমার গন্তব্য স্থলে পৌছাবে,
এ বিশ্বাসটাই আমার সবসময় ছিল।

আর নিজের স্বপ্ন তো ঐ গহিন অরণ্যের মাঝে
এখনো খুঁজে বেড়াই ।