তোমার হয়তো পথ জানা নেই
এ পথ তো জানে থামবে কোথায়।
বিশ্বাষের তরে যাওনা এগিয়ে
বন্ধু জন সব পথেই মিলায়।

তোমার ঈপ্সিত পথের পিঠে
ফনিমনসা\'রা লুটোপুটি খায়।
অকল্যাণ ছেড়া ফুলঝুড়ি ছুটে
নহবত বাজে দেখ আঙিনায়।

মলিন ছেড়া-ফোড়া এলো বাতাস
তুবড়ি বাজিয়ে যায় যে সহসা।
রোদে ভেজা সফেদ বালুকা বেলা
শোষে নেয় অমৃত ঘন তমসা।

অকস্মাতের তীরে তরী ভিড়িয়ে
তুমি যতই করো দিব্য বসতি।
লোকালয় সে কবেই হারিয়েছে
প্রিয় বাজার পুরোটাই পড়তি।

হাল ছেড়োনা কভূ আপন ভুলে
হৃদয় তুলিতে অাঁকো যে সমন।
আহাজারি সব নাই বা উঠুক
আশ্বাষের ছলে জমবে রমন।

অক্লেশে যে যোদ্ধা দিয়েছে জীবন
সেই তো পেল বিজয়ের বারতা।
তুমিও সেথা থামবে অবশেষে
যেথা তোমার অতি নিত্য বন্ধুতা।

নিজেই তোমার আপনার হলে
পরের তরে নাই বা সদাশয়।
মিছেই বন্ধু আর হেঁটে মরোনা
পথেই তোমার অমোঘ আলয়।