আমি অফিসের বড় বাবু,
ঘুষ নিতে অবিচল আমি,হইনা তো কোন কিছুতে কাবু।
নিচ্ছি ঘুষ,খাচ্ছি বেশ।
পেটটাও হয়েছে মাশা’ল্লা বড়
না নিয়েই বা কি করব,লোকেরা দেয় যে সবে হয়ে জড়সড়!

আমি ফাসর্ট ক্লাস অফিসার,
কতশত কাজ করি,করি সার্টিফাই মানুষের নাম-ঠিকানা
টাকা পাই, করি কাজ-হোক না সে অচেনা-অজানা!

“I’m” স্যারের পিয়ন,
স্যার আমার আদর্শ আর তাই নীতিহীন কাজে আমি সদাই সচেতন।

আমি সরকারি উকিল-পিপি
দলীয় ক্যাডারদের বাঁচাতে বড্ড ব্যাস্ত এখন লিখতে বিধি-লিপি।

আমি এনজিও কর্মী-“বিদেশী”
এখন বেশ আছি,
নিরীহ মানুষ নিঃস্ব করার পাশাপাশি,
বন্ধ করতে পেরেছি যে অনেক এনজিও – এ’দেশী!

আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা যদিও ৭১’এ ছিলাম রাজাকার!
এ’দেশের সরকার ও জনগণ উভয়ই খুবই সচেতন;
তাই তো নিয়মিতই পাচ্ছি আমি, “মুক্তিযোদ্ধা-ভাতা”,
যা দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার!

আমি একজন সামান্য কৃষক এছাড়া অন্য পরিচয় দিতে এখন লজ্জা পাই;
সত্যি কথা বলতে কি,“কষ্ট পাচ্ছি ভাবতেও ঘৃণা হয়”।
আরে ভাই!
মুক্তিযুদ্ধে আত্মীয়-স্বজন,বাড়ি-ঘর,শ্রম-মেধা কুরবাণী দিয়েছিলাম কী
স্বাধীনতার পর ও দেখতে রাজাকারদের ঠাঁট-বাট আর বড়াই?

সাবাশ বাংলাদেশ! সাবাশ!
অভাব-অনটন-অভিমান-অনুযোগ যাই থাক,
একটাই কামনা করি বাংলাদেশ,
আমার বাংলাদেশ তুই ভালো থাক।