দাড়িয়ে আছি শতাব্দীকে সামনে রেখে হাতের পরে,
এক টুকরো দুঃখ আর অশ্রু নিয়ে।
এক খণ্ড জমিনের সামনে এসে
বুক ভেঙ্গে যায়-
সামনের শিমুল গাছকে মনে হয় যেন প্রহরী
কত কালের সাক্ষী সে?
কত কাল ধরে দাড়িয়ে আছে আমার মায়ের পাশে|

মাগো- এ ভাবে ফাঁকি দিলে?
দূর পরবাসে রেখে আমাকে|

সামনের পাহাড়ের দিকে তাকিয়ে থাকি
সমুদ্রের কোল ঘেঁষে বসি
তরঙ্গের পর তরঙ্গ ভেদ করে যে-
ফেনারা ভেসে আসে
আমি আছড়ে পরি তাতে।
ক্লান্ত হয়ে নয়ন জ্বলে ভিজে
আবার আসি ফিরে
তোমার পাশে দাড়িয়ে থাকি,
দাড়িয়ে থাকি শতাব্দীর পর শতাব্দী।
শেষ কবে দেখেছিলাম তোমায়?
কত কাল আগের সেই অরণ্যের কিনারায়।
মাঝে মাঝে ঝরা শিশিরের মত
ঝরে যেতে বড় ইচ্ছা করে।

পৃথিবী চলে তার গতিতে
আমি হারাই সময়ের স্রোতে।

পালা করে দাড়াই দুই বার বছরে
তোমার কবরের পাশে।
মাগো- শিমুল গাছটা কারা যেন কেটে নিয়ে গেছে
মনে হয়-
পৃথিবী অনেক মূল্য, সত্য ভুলে গেছে।
আমার নতুন অস্তিত্ব আমায় নাড়া দেয়,
আমি হারিয়ে যাই নতুনের মাঝে।