নষ্ট প্রেমের উদ্দাম আবেগে বীর্যপাত ঘটে পতিতার ঘরে
জন্মদাতারা সব পলায়নপর আজ উন্নাসিক সময়ে ।

অলস দুপুরে ক্লান্তির ছায়া নামে অষ্টাদশীর অবয়বে
বিষণ্ণ অপরাহ্ন খেলা করে পাণ্ডুর ওষ্ঠাধরে
দু’চোখের অলিন্দে ঘনিয়ে আসে অসময়ের সন্ধ্যা
কর্কশ আর্তনাদ গর্ভবতী টিকটিকির ।
ক্রমশ ,
ক্যালেন্ডারের পাতায় ছুঁয়ে যায় সব অসহায় তারিখ
সর্বনাশা রক্তপিণ্ড জানান দেয় তার সরব উপস্থিতি
ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠে ভ্রূণ কলঙ্কিত জঠরে
মন গহীনে তরঙ্গায়িত হয় ফেনিল ঢেও
আছড়ে পড়ে হৃদয় ঘাটে নিষ্ফল আক্রোশে ।
তবুও ,
থেমে থাকেনা কর্মকারের সময়ের হাতুড়ী
আকার পায় মানবশিশু অভিশপ্ত খেলাঘরে ।
শবচোখে তাকায় মা , শুন্য কোল
ডাস্টবিনে প্রতিবাদ জানায় সদ্যজাত
বাতাসে ছড়ায় আর্ত চিৎকার জনক কে ?
ভিড় জমায় হাজার রাতের নপুংসকেরা
অবশেষে ,
স্তব্ধ হয় নবজাতকের কণ্ঠ , নিরব রয় নিশীথের মা ।