সেই শকুন, সেই কালো শকুন
আবারো ধারালো নখ নিয়ে
লোভী চোখের নজর দিয়েছে
লাল সবুজের পতাকায়।

সেই কালো কুকুরটা
যে ছোট শিশুর কঁচি শরীরের
কাঁচা মাংস খেয়েছিল একদিন
উদরপূর্তি করে,
সে আবারো ঘুরছে
পুরনো দিনের ছবি
নতুন করে দেখছে বলে।

সেই মুক্তিসেনা
যে বস্তা ভরা
বাঙ্গালীর চোখ পেয়েছিল
কনসেন্ট্রেশন ক্যম্পে,
যাদের হত্যা করা হয়েছিল
সেই কালো দিনগুলোতে।

সেই যে অচেনা যুবক
যার পরনের লুঙ্গি খুলে
যাচাই করা হয়েছিল
তার ধর্ম,
তাকে হতে হয়েছিল
সভ্যতার প্রতীক।

সেই গর্দ্দার
যে দেশ মাতৃকার টানে
শত্রুকূপ থেকে আকাশ যান নিয়ে
আসতে চেয়েছিল
এবং এসেছিল
মৃতু্যর পঁয়ত্রিশ বছর পর
আকাশ যানে চড়েই।

সেই যে ভাই
যে বলেছিল বোনকে নিয়ে
ঘুরতে যাবে গ্রামে,
বোনটি তার পুরোটা গ্রাম
ঘুরেছিল ভাইয়ের
মরদেহ খুঁজতে।

সেই যে প্রেমিক
যে তার প্রেয়সীকে বলেছিল
লাল শাড়িতে তোমায় সাজিয়ে
নিয়ে যাবো আমার করে,
মেয়েটি তার প্রেমিকের
রক্তমাখা শরীরটি জড়িয়ে ধরেছিল
তার শাড়িটি হয়েছিল রক্ত লাল।

সেই যে সবুজের বুকে লাল
কেড়ে নিতে চেয়েছিল
জল্লাদের দল,
আজো মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে আছে
আমার বুকের জমিনে।