নারী তুমি মা হয়েছো, সন্তান তোমার ছেলে

একটি মেয়ে একটি ছেলে, রহমতে তাঁর পেলে!

নারী তুমি মা হয়েছো, জীবন হলো পূর্ণ

পরিবারে হচ্ছে আহা, সুখের হাওয়া ঘূর্ণ।



নজর তোমার দুভাগ হলো, ছেলে মেয়ের বেলা

ছেলেকে দাও খাবার বেশী, মেয়ের প্রতি হেলা।

মেয়ে বলে মাগো তুমি, দুই নজরে দেখো

বড় হলে দেখবে কে সে? আমিই মনে রেখো।



মায়ের নজর বদলালো না, ছেলে মেয়ের প্রতি

সময় যাবে ভবিষ্যতে, বাড়ালো তার গতি।

চাকুরীতে ঢুকলো গিয়ে, তোমার ছেলে মেয়ে,

যাচ্ছো তুমি দিনদুপুরে, সুখের জলে নেয়ে।



ছেলে মেয়ে হলো বড়, বিয়ে হয়ে গেলো

সংসার তোমার এবার বুঝি, হলো এলোমেলো।

বউয়ের কথা শুনে ছেলে, খোঁজ রাখে না তোমার

বুকে তুমি জমাও নারী, কষ্ট যে বেশুমার।


বউয়ের কথায় উঠে বসে, বিশ্বাস করে তারে

তোমার প্রতি বিশ্বাস বুঝি, উঠে গেলো হায় রে।

সপ্তাহান্তে বাড়ি যায় সে, বউয়ের নতুন শাড়ি

নতুন জোতা নতুন জামা, ভরে যায় আলমারী।


তুমি নারী জুতা পরো, মূল্য দেড়শো টাকা

বউয়ের সাথে থাকা খাওয়া, ঘরটা যে তোমার ফাঁকা!

নেয় না খবর তোমার ছেলে, অসুখ বিসুখ কত

বুকে তোমার দিবানিশি, বাড়ছে ব্যথার ক্ষত।



মেয়ে তোমার রাখে খবর, টাকা পাঠায় অল্প

তার সাথেই করো এখন, তোমার দুঃখের গল্প,

বউয়ের কষ্ট ছেলের বুকে, যায় লেগে যায় ত্বরা,

তোমার কষ্ট দেখে না সে, আঁধার তোমার ধরা।


কেঁদো নাগো মা জননী, মেয়ে আছে বেঁচে

আর থেকো না পড়ে তুমি, সংসারেরই প্যাঁচে,

মেয়ে তোমার পাশে আছে, যদ্দিন বাঁচো ধরায়

আর পুড়ো না অযাচিত, অবহেলার খরায়।


ছেলে একদিন বাবা হবে, মা হারাবে সেদিন

আসবে নেমে দেখে নিয়ো, তারও এমন দুর্দিন,

দুনিয়া যে ধার উধারের, নারী জানো তুমি,

ঠিক এমনি পাবে শাস্তি, কাঁপবে বুকের ভূমি।