একদিন তুমি ছিলে।
আমি আলোর চারা বুনেছিলাম।

আমার ক্ষেত ভরা ছিল
আলো আর আলো,
আমার উঠান জুড়ে
আলোর নবান্ন উৎসব।

আমার ভূর্জপত্র খামে
তুমি ছিলে আলগা করে সাঁটা
ভিনদেশী ডাকটিকেট,
রানীর ছবি আঁকা।

আমার অসূর্যস্পশ্য বনভূমি জুড়ে
তুমি ছিলে পোল্কা ডটের ত্রস্ত হরিণ।

এমন ধুরন্ধরের দেশে,
এমন ষড় ঋতু ষড় রিপুর দেশে
ভ্যাপসা গরমে তুমি ছিলে জাপানী পাখা,
শীতস্পৃষ্ট ভোরে কুয়াশা ভেপু,
ভাদ্রের ভ্রূকুটিতে গোলপাতার ছাউনি।

একদা ব্যাপক ছিলে,
আজ বহু হয়ে গ্যাছ।

কোথাও প্রগল্ভতা দেখলে
তবু মনে পড়ে
বয়ঃসন্ধির মুদ্রণ থেকে বেরিয়ে আসা
তোমার প্রথম সংস্করণ,
আলোক-শস্য।

একদিন তুমি ছিলে।
আমি আনন্দের চারা বুনেছিলাম।