ভস্মে লুকানো ঘূর্ণিবায়ুর সোমত্ত হৃদয়
লেখার বান তুলে এনে দেয় কালির ওম
সাধনায় জাগে- উন্মত্ত শব্দের বেলাজ লিপ্সা!

পিচ্ছিল দোষেই নিষিদ্ধ চৌকাঠে ব্যক্তিগত মঞ্চ
দাড়ি হসন্ত কোলন বর্ণের প্রলম্বিত মুক্তিতে
ভেংচি কাটে মা কালির জিভ অপাঠক মূর্তিতে...
কষ্ট হয়; জানালায় আটকে থাকে ডানা
বোধের বুদ্বুদে ফোটে অন্ধকার-নীল মানা।

পাঁচ টাকার কলমের কাছে এক টাকার পৃষ্ঠায়
এক রাজকুমারী ঘুমিয়ে থাকে ঠোঁট ফুলিয়ে
রাক্ষসের ঘর- রাক্ষসপুরী!

তবু চেতনা ফিসফিসায়; নষ্ট শসার পাশেই
জাগে মুক্তির ঘাসফুল আশা-
“অনন্তকালের পায়ে মৃত পড়ে থাক প্রাণ ভোমরা
রাজকুমারী জেগে চোখে রাখুক চোখ
দিক অর্ঘ্য- এক ক্লান্ত হৃদয়ে!”