লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৩১ জুলাই ১৯৮৭
গল্প/কবিতা: ৩২টি

সমন্বিত স্কোর

৫.৮৮

বিচারক স্কোরঃ ৩.৪৩ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৪৫ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftক্ষুধা (সেপ্টেম্বর ২০১১)

কবিতায় পুনরাবৃত্তি কবির ঝুলে থাকা
ক্ষুধা

সংখ্যা

মোট ভোট ১৩৫ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.৮৮

খন্দকার নাহিদ হোসেন

comment ১৪৫  favorite ২৬  import_contacts ১,৯০২
অন্ধকার বাঁটা কোপ্তার বাসনকোসনে বিন্যাস
পেঁয়াজ ছেঁচা রসের ঘন্ট
কাঁসার থালায় ভাপা ভাত-ভাতের আঁচ
সালুনের বুক থেকে উঠে আসা ঝাঁঝ
হঠাৎ
কলম হাতেই ডাক পড়ে সমানুপাতিক জীবনের
উঠে চলে যাই যাওয়ার নিয়মে
শূন্যতার জলে জেগে থাকা ক্ষুধার্তের চরে
স্বল্পালো কুপির বাতি থেকে দূরে আরো দূরে
যাওয়ার নিয়মেই পিছনে থাকে-শুধু পড়ে থাকে
বাসনকোসনের বিন্যাসে সালুনের বুকের ঝাঁঝ।

এইতো আমি যুগোপযোগী কালশিটে নিয়ে
পরিব্রাজকের পায়ে ভাঝ খোলা কাপড় গায়ে
একটুক্ষণের স্থির ভূমিকা;
বোধে খননে খননে জনপদ সম্মোহ মধ্যবিত্ত
সময় পাঠের ছাঁচে বিকোলাম কড়ি মোহর
মেলেনা কিছু
কিচ্ছু না। খুদকুঁড়ো দূরে থাক নিংড়ানো তেতোও
মেলেনা ভাগে।

অথচ ওড়াউড়ির কলমটা জানে
কোন দণ্ডাদেশে কি আয়োজন ছেড়ে আমার
উঠে আসা;
কালক্ষয়ে আঁটকুড়ে কবির গর্ভপাতের যন্ত্রণা
অচিকিৎসায় যাপিত জীবন, সুঁইয়ের ডগায় ফোটে
অন্তর্গত সত্যের কাঁথায়- “ক্লিনিক্যাল ডেড”
বুঝি নজরদারির অভাবে ধানফুল ঝরে যায়
গোচরযোগ্যতার ভুলেই মাকাল ফলে দেই কামড়
দিনানুদৈনিক বাঁধাছাঁদা- পাত্তা পায়না কিছু চলার কাছে
ঝরে যায় ঝরে ঝরে
নিভৃতের বকুল, কাঁচা শিশিরের ঘ্রাণ, জিভের ডগার ক্ষুধা......

সন্ধ্যার সানকিতে বাবেলের চূড়া- প্রত্নতাত্ত্বিক সুখানুভূতি
আত্মমগ্নতার তুষে সাফল্যের মালশায় আলো
ব্যস্ত বাস্তবতার ব্যস্ততায় আমি-আমার আড়ালে
উপোষী বাস্তুহারা কবির সেমেটিক কবর
যেমন আড়ালে প্রতিকৃতি
স্বরচিত জন্মকথার ফ্রেমবন্দী ডালপালা থেকে
সেখানে আর যাই হোক শিউলি কুড়ানো ভোর
কেউ খুঁজে পাবেনা। কেউ না।

সরল অঙ্কের সরলতার ছোঁয়ায় নিরুত্তরের ঝাপটা
ভাঙনের মাটির কাছে অঙ্কুরিত রাত
রাত বাড়ে
ভাঙনের পাড়েই স্ত্রস্ত রাত বাড়ে......ছলাৎ ছলাৎ
হঠাৎ
মগজের উঠোনে অবচেতনের শ্যামা পাখি
গহনের বাক্যবন্ধগুলি উপচায় ধারাজলে
প্রতিটি কবিতার কৌটোয় পাই- প্রত্যাবর্তন
প্রতিটি কবিতার ভিতর টান মারে চোখ বোজা জীবন
প্রতিটি কবিতায় আমার শুধু ঝুলে থাকা-ঝুলেই থাকা
ঘূর্ণায়মান শব্দের গ্রহ আর ক্ষুধার্তের চরের ভিতর
হায় সরলের সরলতায় মেলেনা কিছু , কিচ্ছু না;
নিরুত্তর অঙ্কের উত্তর-একই রোজনামচা
সাথে দশমিকের পাশে
পুনঃপৌনিক পুনরাবৃত্তি পুনরাবৃত্তি পুনরাবৃত্তি......

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement