ভালোবাসাময় দীর্ঘশ্বাস

ভালবাসি তোমায় সংখ্যা

tafimulislam
  • ৪১২
:হ্যালো
-ফোন দিয়েছো কেন?
:কি করছিলা শোনার জন্য।
-ঘুমানোর চেষ্টা করছিলাম ।
:কিন্তু তোমার ফোন তো ওয়েটিং এ ছিল।
-তো?এখন কি বলবে আমি আমার বন্ধুদের সাথে কথা বলতে পারব না?
:আজব তো তা কেন বলব।
-তুমি কি আমাকে সন্দেহ করো?
:যদি সন্দেহ করতাম তাহলে আগেই জিজ্ঞেস করতাম কেমন বন্ধু যার সাথে সারারাত কথা বলতে হয়।
-সবই বুঝি,রাখো তুমি ফোন,ভালো লাগছেনা।

এক সেকেন্ড থেকেও কম এই ধ্বনিটি,বিপ! মানে ফোনটা কেটে দেয়া হয়েছে, আর সাথে একটা ছেলের হৃদয়ের আকুলতা।

আকুলতা? ও আচ্ছা বলাই তো হয়নি। আমি রিমন, আর ফোনে যে কোকিলকণ্ঠার সাথে কথা হলো সে হলো রিনা। আমাদের প্রেমের পাঁচ বছর হবে এই ফেব্রুয়ারীতে। প্রথম যেদিন দেখা হয় সেদিন রিনা সাদা একটা শাড়ি পরে রিকশা দিয়ে যাচ্ছিল। তাকে দেখে একরাশ ভালোলাগা ও আবেগের ঝড় আমার চারিপাশে ঘোরা শুরু করলো। লাভ এট ফার্স্ট সাইটে বিশ্বাস করেন কি করেন কি না সেটা আপনার ইচ্ছা।

আবেগটা ভালোবাসার। অনেকে ভালোবাসাকে আবেগ হিসেবে অভিহিত করেন না, তারা আবেগকে অবজ্ঞা করেন। কিন্তু ভালোবাসা যে নিজেই একটা বিশেষ আবেগ তা তারা বুঝতে চান না, বুঝলেও মানেন না। অনেকে দেখি ভালোবাসো প্রেম দুইটা সমার্থক শব্দ কে আবেগ দ্বারা পার্থক্য করতে চান। আজব, তাই না?

তো অনেকেই ভাবছেন কী হলো রিমন আর রিনার। কিন্তু বাজী রেখে বলতে পারি অনেকেই ইতিমধ্যে বুঝে ফেলেছেন। এটাকে বলে ‘ফাটল’। ভালোবাসা নামক হাড়ে ফ্র্যাকচার। বিশ্বাস নামক বিল্ডিং এর প্লাস্টার খসে পড়ছে। দূরে সরে যাচ্ছি আমরা। হয়তো এটা কন্টিনিয়াস টেন্স‌ও না,আমাদের মধ্যকার দূরত্ব ইতিমধ্যেই হয়তো যথেষ্ট বড় হয়ে গেছে।

ভালোবাসার সংজ্ঞা নিয়ে বিচিত্র আছে। একেকটা মন মানে ভালোবাসার একেকটা মানে। ডিকশনারি খুঁজলে ওতো কেয়ার, এফেকশন, স্ট্র‌ং ফিলিংস নামক শব্দ ছুঁড়ে দেয়। জিনিসটা কিন্তু তার থেকেও বড়। যারা প্রেমে পড়েছেন বুঝবেন। সে এক স্বর্গীয় অভিজ্ঞতা, তাই না?

তারপরের কাহিনী সবারই জানা। চোখাচোখি, আমতা আমতা করে কথাবার্তা, তার জন্য রাতের ঘুম হারাম, বন্ধুত্ব, তার চোখের দিকে তাকিয়ে হারিয়ে যাওয়া, তার জন্য বুকের ভেতর থেকে গান বের হয়ে আসা, কোলবালিশটা আরও আবেগে জড়িয়ে ধরা, ঘোরাঘুরি করা, হাতে হাত রাখা, একদিন বলেই ফেলা মনের কথা। বারবার মনে হয়,আমার কি কোন ঘাটতি ছিল?

ভালোবাসার সংজ্ঞা কয়েকটা শব্দ দিয়ে বাক্য গঠন করে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। এর থেকে কিভাবে একজন ভালোবাসে সেটাই তার কাছে ভালোবাসা। কনফিউজিং, তাই না? অনেকেই রিলেশনশিপে সেন্টিমেন্ট পছন্দ করেন না, কিন্তু তারা যদি একটি বারের জন্য ভেবে দেখতো তাদেরকে ভালোবাসে বলেই বিপরীত মানুষটার নিজের আত্মসম্মান খোয়াতেও তোয়াক্কা করে না।

তারপর? তারপরের কাহিনী কিছু কিছু হতভাগা অনুমান করতে পেরেছে। তিনটা বছর ভালই কাটল তারপর কেমন জানি বদলে যেতে শুরু করল। ইগনোর করাটা যদি আমার আর আপনার কাছে এক হয় তাহলে ইগনোর করা শুরু করলো। আমার কথাগুলো বারডেন হিসেবে নেয়া শুরু করলো। কথায় কথায় বলা শুরু করল “আমাকে জাজ করার চেষ্টা করবে না”। তবুও কি জানেন, ওকে ভালোবাসি বলে ভেবেছিলাম আমাকে অপমান করার অধিকার ও রাখে, এটা কি ভুল? কেউই চায় না কাছের মানুষটা অচেনা মানুষের পরিণত হয়ে যাক।

প্রেম-ভালোবাসার অনুভূতিতে নতুনত্ব আশা করাটা হয়তো বোকামি। এর চেয়ে কেননা বিপরীত মানুষটিকে‌ বলি নতুনত্ব আনতে। ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেঞ্জারের চেনা দুনিয়া থেকে ছুটি নিয়ে হাতে হাত রেখে কোন এক জায়গায় ঘুরে আসতে। একঘেয়েমি শুধু ভালোবাসা নয় যেকোনো ভালো সম্পর্কের অভিশাপ। যাকে ভালোবাসেন তাকে একঘেয়ে লাগলে নিজের ভালবাসার সংজ্ঞা কে প্রশ্ন করুন। কিন্তু ভাই-বোনেরা আমার, চার মাস, আট মাস, এক বছর, পাঁচ বছর না সময়? ভালোবাসা না চিরকাল থাকার কথা?

ঝগড়া দিয়ে কিভাবে সম্পর্ক দৃঢ় হবে যদি সেই সম্পর্কটাই দূর্বল থাকে।


……
….
অনেকক্ষণ পেরিয়ে গেছে।
হঠাৎ ফোন বেজে ওঠে, রিনা ফোন দিয়েছে
-ওই শয়তান!
: জি শুনছি, কিছু বলবে রিনা?(আমাকে অনেকদিন হলো শয়তান ডাকে না)
-নাটক কেন করছে? বুঝতে পারছ না যে আমাদের মধ্যে সবকিছু ঠিক নাই।
: হুম! হয়তো তোমার থেকে বেশি!
-কেন এমন হচ্ছে? পাঁচ বছরের সম্পর্ক সব‍ই‍‍ কি মিথ্যা হয়ে যাবে?
: কক্ষনো না!
-আমি কয়েকদিন ধরে ভাবছি, আস্তে আস্তে সব বুঝতেও পেরেছি। আর বলছিলে না ফোন ওয়েটিং থাকে, আমি বান্ধবীর সাথে এগুলো নিয়ে কথা বলছিলাম। তোমাকে অনেক কষ্ট দিয়েছি তাই না?
: (অশ্রুসিক্ত কন্ঠে) আগের মত হয়ে যাও, কষ্ট সব পানি।
-বল আমাকে কি করতে হবে?
: ভালবাসতে হবে, পারবে?
-(এক চিলতে হাসি)কাল দেখা করবা? নদীর ধারে?
: এখনই আসি চাইলে।
-ধ্যাত! দুষ্টু কোথাকার


ঘুম ভেঙে গেছে।


নিছক স্বপ্ন? কিন্তু আমার তো মনে হচ্ছিল আমার হৃদয়ের আকুলতা গুলো একটা একটা করে মিটে যাচ্ছিল। তো এখন কি মনে হচ্ছে জানেন? কল্পনা যদি বাস্তব থেকে ভালো হয় তাহলে তো কল্পনায় ভালো, নয় কি?

না! হার মানলে হবে না। রিনা আমার জীবন। যে করেই হোক ওকে বুঝাতে হবে, এট এনি কস্ট! আমার প্রতি টানের শেষ মোমবাতি নিভে যাওয়ার আগেই নদীর ধারে ওকে ডাকতে হবে, বিবর্ণ একটা গোলাপ নিজের হাত কেটে রক্তে রঙিন করে ওকে দিতে হবে, জড়িয়ে ধরে আর্তনাদ করে বলতে হবে, “একটু বেশিই ভালোবাসি তোমায়”!

হাঁপানি রোগীর মতো হন্তদন্ত হয়ে ফোনটা খুজলাম, রিনার নম্বর ডায়াল করলাম।

“আপনি যে নাম্বারে কল দিয়েছেন তা এই মুহূর্তে ওয়েটিংয়ে আছে, কিছুক্ষণ পর আবার চেষ্টা করুন, ধন্যবাদ”

….
শূন্য চোখে সিলিংয়ের দিকে তাকিয়ে আছি।


…একটি দীর্ঘশ্বাস, আরেকটা নির্ঘুম রাত….
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
Md.Maidul Sarker গল্পটা আরও গুছিয়ে লিখা দরকার ছিল।
ভালো লাগেনি ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
ফয়জুল মহী অনন্যসাধারণ অনুভূতি
ভালো লাগেনি ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

০৮ জানুয়ারী - ২০২১ গল্প/কবিতা: ১ টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের আংশিক অথবা কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী থাকবে না। লেখকই সব দায়ভার বহন করতে বাধ্য থাকবে।

প্রতি মাসেই পুরস্কার

বিচারক ও পাঠকদের ভোটে সেরা ৩টি গল্প ও ৩টি কবিতা পুরস্কার পাবে।

লেখা প্রতিযোগিতায় আপনিও লিখুন

  • প্রথম পুরস্কার ১৫০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • ্বিতীয় পুরস্কার ১০০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • তৃতীয় পুরস্কার সনদপত্র।

বিজ্ঞপ্তি

“ডিসেম্বর ২০২১” সংখ্যার জন্য গল্প/কবিতা প্রদানের সময় শেষ। আপনাদের পাঠানো গল্প/কবিতা গুলো রিভিউ হচ্ছে। ১ ডিসেম্বর, ২০২১ থেকে গল্প/কবিতা গুলো ভোটের জন্য উন্মুক্ত করা হবে এবং আগামি সংখ্যার বিষয় জানিয়ে দেয়া হবে।

প্রতিযোগিতার নিয়মাবলী