এই কবিতায় আমি বাবার অস্তিত্বকে বিভিন্ন রূপকে প্রকাশ করার চেষ্টা করেছি। বাবা তাঁর সন্তানের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। একজন বাবা তাঁর সন্তানদের কাছে ঘনিষ্ঠ বন্ধুর মতো যখন যেকোনো কিছুতে তাঁর প্রিয় সন্তানেরা মতামত প্রকাশ করে কিংবা যেটাকে আমরা বলতে পারি সাহচর্য, এর সবটুকুই বাবা দাবীর প্রশ্নে পূরণ করতে অপারগ নন। এমনকি মায়ের অনুপস্থিতিতে একজন বাবা পরিবারে মায়ের ভূমিকাও রাখতে সক্ষম। বাবার ভালোবাসা অমলিন। পরিবারের লালন-পালনে বাবার খাটুনিকে অবজ্ঞা করার কোন উপায় নেই। পরিবারে বাবা হলেন ছাতার মতো।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৯ মে ১৯৮৫
গল্প/কবিতা: ৬টি

সমন্বিত স্কোর

৩.১৮

বিচারক স্কোরঃ ১.৩৮ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৮ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - বাবা (জুন ২০১৯)

বাবার ছায়া
বাবা

সংখ্যা

মোট ভোট প্রাপ্ত পয়েন্ট ৩.১৮

পুলক আরাফাত

comment ২  favorite ০  import_contacts ১৪৩
মাতৃত্বের সাধ পূর্ণ হয় সৃষ্টির পিয়াসে সে তো পিতৃত্বের ঔরসে।
বাবা হলো সারাদিন ব্যস্ত প্রহরের পরে বাসায় ফিরে সন্তানকে কোলে টেনে নেয়ার নাম।
বাবা হলো- মাতৃত্বের অসাড়ে আবশ্যক ছুটে চলা এক অদম্য স্মারকের অনুভূতি।
বাবা হলো কোন প্রশস্ত বিকেলের শেষ ঝাপটায় পড়ন্ত ফর্সা দিনের গোধূলির সৌন্দর্যের মতো।
কোন এক দীপ্ত ভোরে মাতৃহারা সন্তানের হাপিত্যেশে বাবা হলো পরিবারে শান্তির ছায়া।
অজানা কোন কারণে বুভুক্ষু নাজুক সময়ের পাড়ে- বাবা হলো চোখের ব্যাপৃত পরিসর।
যে পরিবারে মায়ের আদর খুঁজে পায়না অনাহূত কারণে যদি কোন এক মিষ্টি শিশু,
সেখানে বাবার মমতা কোন নিরিখেও মায়ের ভালোবাসার চেয়ে কম নয় কখনো।
স্ত্রীর কোল জুড়ে আসা প্রথম সন্তানের প্রথম আগমনী কান্নার সাক্ষী তো বাবাই।
আহা, কতো নিমগ্ন বিধুর কতো আবেগের স্নানে জড়ানো-
ভালোবাসার আজন্ম নাম বাবা; জড়িয়ে থাকে হৃদয়ের গহীন কোণে ভাস্বর হয়ে।
বুকের জাদুধন সন্তানের প্রয়াসে মানসে ব্যাকুল; জীবনের প্রয়াণেও-
স্মৃতি ধরে থাকা সেই তো বাবাই; যদি মায়ের অস্তিত্ব না থাকে বিচিত্র এ পৃথিবীতে।
যদি কোন বাবার প্রাণান্তে শাসন লুকিয়ে থাকে,
সে তো সন্তানের ভালোর ঔদার্যে সবসময়।
এ পৃথিবীতে কেউ কি প্রিয় বাবার কাছে করা আবদারের বিপরীতে-
খালি হাতে চোখের জল ফেলেছে?
বাবা- এই শব্দে লুকিয়ে কাঁদে বা হাসে দীর্ঘজীবনের শ্রমের ঘাম,
পরিবারের হাসিমুখ ধরে রাখার সাথী হয়ে তিনি যে ধন্য মুখশ্রী এক মনের ধাম।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement