নিরব চারিপাশ,খোলা জানালা।
বাইরে শীতল হাওয়া,ঝিঁ ঝিঁ পোকার ডাক।
জানালার পাশে আমি এখনো দাড়িয়ে।
পথের দিকে দুই চোখ।
সে কি আসবে?

মন উতালা,ঘুমহীন চোখ।
উদাস উদাস মূহুর্ত,কাটতে চাইছেনা প্রহর।
সে কি জানে আমি তার অপেক্ষায়?

অনেকগুলো অভিমান,হালকা কিছু রাগ।
ছটফট করছে হৃদয়,ধৈর্য্য হারিয়েছে মন।
আর কতক্ষন? এ অপেক্ষার।

চোখের কোণে কয়েক ফোটা জল,বুক ধরফর করছে।
জানটা বুঝি চলেই যাবে,সে কি জানে না আমি তাঁর পথের দর্শক?

টর্চ লাইটের আলো,কে যেন ছুটে আসছে?
অন্ধকার চারিপাশ।
পরিচিত কারও মুখের মতই ভাসছে।
আমি চমকে গেলাম। বুক ধুকধুক থেমে গেছে।
কখন যে চোখের জলটুকু মুছে ফেলেছি জানিনা।
দুই ঠোট হাসিতে ভরে গেল।
যখন মানুষটির কথার আওয়াজ শুনলাম।
অপেক্ষার প্রহর বুঝি শেষ হলো।

দরজা খুললাম। তাঁকে জড়িয়ে ধরলাম।
একটু কান্নার আওয়াজ।
বলো, আর কখনো এরকম করবেনা।
আমার বউয়ের ভাঙ্গা ভাঙ্গা কথা।

আজ অনেক দিন হলো। প্রায় দুই বছর।
সেই যে গিয়েছে আর আসিনি ফিরে।
সর্বনাশা ক্যান্সারে।
হারিয়ে গেছে চিরতরে।
যেন শত জনমের অপেক্ষাতে।

মাঝে দুই একবার এসেছিল।
থাকিনি বেশিক্ষন।
মিনিট দুই –তিন হবে।
কথা বলেছিল অনেক। উল্লেখযোগ্য একটা।
আজও আমি তোমার অপেক্ষায়।
তুমি কি শুনছো?