আমার লেখার মূল বিষয় পিতার ভালবাসা। সাথে মায়ের আকুতিও আছে। অস্থির এই সমাজের ছেলে মেয়ে নিজেদের সুখ চিন্তায় বিভোর। তবু তাদের দোষ দেই না আমি । তারাও ক্লান্ত থাকে নানা কাজে নানা সমস্যায়। তাই নির্মূল আনন্দ পেতে তাদের সুখ খুঁজে বেড়ায় নিজেদের মত করে। অন্য দিকে পিতা তার আজন্ম কষ্টে গড়ে তোলা সংসার শুধু সন্তানের ভবিষ্যৎ ভেবেই জিনি করেছেন। সন্তানদের নিজ নিজ ব্যস্ততায় সেই ঘর শূন্য । খাঁ খাঁ করে তার বুক শূন্য গৃহের মতই তাঁর বুক শূন্য। বিশেষ উপলখ্য কে কেন্দ্র করে সবার উপস্থিতি আশা করে সাজায় চারপাশ। সেই সাজানো সংসারে তাদের অনুপস্থিতি কত কষ্টের এই কষ্ট এক পিতা জানে। তাঁর দুই চোখ অশ্রু সজল বুক ভেসে যায় চাপা কান্নায়। তাই আমি মনে করি কবিতাটি বিষয়ের সাথে সামঞ্জস্য পূর্ণ।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ মে ১৯৭৬
গল্প/কবিতা: ৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftপিতৃত্ব (জুন ২০১৮)

প্রজন্ম ব্যবধান
পিতৃত্ব

সংখ্যা

Shamima Sultana

comment ০  favorite ০  import_contacts ৩৬
প্রিয় মানুষ টি নাম ধরে ডাকলে
কি তৃপ্তি লাগে,
আজ বুঝবে না
বুঝবে আগামী দিনে।
যখন ডাকবে না কেউ
তোমার নিজস্ব নামে,
হবে কারো বাবা কেউ বা মা,
নিজের নাম টা ঢেকে যাবে
তাদের আড়ালে।
খুব ইচ্ছে করবে
বলুক নাম ডেকে,
কি করছ বাবা
অথবা প্রিয় মা।
এবারের ঈদে আসবে তো?
পিতৃ গৃহে।
খুব অভিমান ভরে বলবে,
আমার সন্তান বড় সংসারী
আমাদের গেল ভুলে।
ঠিক ভুলেই আছ,
তোমরা যাবে এবার দূরে কোন খানে
ঈদ উদযাপনে।
খুব নিরিবিলি শুধু দুই জনে
সুখের পানসিতে ভ্রমনের স্বপ্নে,
হিসেব কষে রেখেছ বহুদিন ধরে।
তোমার অগ্রজ বাড়িতে বসে শুধু তোমাদের ভাবছে।
ঘরের বেড়া রান্না ঘরের চালা
কিংবা স্যাঁতস্যাঁতে কলতলা,
প্রতিদিন একটু একটু করে অতি যত্নে
মেরামত করছে নিজের হাতে খুব স্নেহ ভরে।
খোকা আসবে সাথে বউমা
অথবা অতি আদরের ছোট মেয়েটা,
জামাই সমেত কতদিন পর।
মা তার নারিকেলের নাড়ু
পিঠে পায়েস সন্তানের প্রিয় হাঁসের মাংস,
কিংবা ঝোলা গুড় সন্দেশ
কত কিছু রাধছে।
দুই প্রজন্মের চাওয়া
কোনটাই অস্বীকার করি না।
আমি বলি না প্রমোদ ভ্রমণে যেও না।
কি করে বলি?
তোমাদেরও আছে নিজস্ব স্বপন সাধনা
প্রতিদিনের কাজ ক্লান্তির অসুস্থ বাতাস।
একটু হাওয়া বদল তোমারও দরকার।
কি এর সঠিক সমাধান?
আমি জানি না।
শুধু কষ্ট হয় সেই প্রিয় মুখ ভেবে,
যখন দেখবে শুন্য সাজানো সে গৃহ
ফাঁকা পড়ে আছে এবারের ঈদে।
অবুঝ দুই নয়ন বাঁধা মানে না
সাগরের নীল নোনা জল তার অধরে।
দুই চোখ উপচে কখন বুক ভাসে,
শত বাঁধা শত শাসন মানে না যে।
পৃথিবীতে ভালবাসা বড় অদ্ভুত নির্মম,
সর্ব সময়।
ভালবাসার ধারা নিম্নগামী বহমান নদীর স্রোতের মত।
ঊর্ধে বসে পাহাড় যেমন কাঁদে,
ঝর্ণা ধারা সে নিম্নেই নেমে আসে।
ততটাই কষ্টে দূর অগ্রজ মোছে অশ্রু জল,
নিম্নে বহমান অনুজকে কাছে পাবার আশে।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

    advertisement