স্বাধীনতা এক মধুর বাণী, লাগে কানে সুধার মতো।
বজ্র কণ্ঠে ধ্বনিত হলো সেই সেদিন
২৬ শে মার্চ, প্রথম বারের মতো।
২৫ শে মার্চ কাল রাত্রি
হানাদার হিংস্রতায় কলুষিত।
বাঙ্গালীর রক্তে রঞ্জিত বাংলা
আকাশ-বাতাস পীড়িত।
বাতাস ছড়ায় মৃত্যুর সুবাস, আকাশ করে হাহাকার
আর্তনাদে ভরপুর বাংলা-বাঙ্গালী, ক্রন্দন-বিষাদ।
স্বজন-সর্বস্ব হারানোর আর্তনাদ।
ওরে থেমে যা.... না না থামেনা
হায়েনা যে আজ পিপাসার্ত।
দিশেহারা.. পথহারা বাঙ্গালী জাতি
বিশৃঙ্খল-অসংগঠিত।
২৬ শে মার্চ এলো স্বাধীনতার ঘোষণা
হলো বাঙ্গালী একতাবদ্ধ।
আৰরিক অর্থেই স্বাধীনতা হলো ঘোষিত।
দীর্ঘ নয় মাস রক্ত নিয়ে খেলা!
পাশবিকতা, উন্মাদনা, ধ্বংস-সৃষ্টি
পরাজয়ের গ্লানি- বিজয় উল্লাস।
১৬ই ডিসেম্বর আনলে বিজয়,
তাইতো ২৬শে মার্চ তুমি
হৃদয় গহীনে অধিষ্ঠিত।