ঈষৎ হাসি হেসে মন্ত্র শোনায় শয়তান সাধুর বেশে
গন্ধ শিকারির নখের আঁচরে রূপসী বসন্ত যায় ভেসে
কয়লার চুলোয় জ্ঞান জ্বলে না মান এনেছে শ্রাবণ
নীরব দুপুরে দুখের সংলাপ ভ্রান্ত নেশায় করে জ্ঞাপন।

নয়ন আলো নিভে গেছে বিবেকে ধরেছে পচন
নষ্ট মনের চেতনা আজ করছে প্রলয় নাচন
মিথ্যে হাওয়ার ঘূর্ণি পাকে পুড়ছে সত্যের বাণী
জরা ভার চারিধার জমেছে মলিন মুখের গ্লানি।

বিষাদময় কালো ছায় পড়েছে দানবের পায়ের ছাপ
আয়নায় দেখি বহুরূপী পলকে পলকে ঝরে অভিশাপ
নীল গারদে সুখগুলো হায়না করে গেছে গ্রাস
আগুন জ্বালায়ে বুকে দেখি চাঁদ গিলে ত্রাস।

বিবর্ণ রঙের গ্রাম শহরে ধু ধু প্রান্তরে দগ্ধ আমার নিদ্রাহীন মাতা
সত্যের পাণ্ডুলিপি কোলে জড়ায়ে কুয়াশায় মোড়া আঁচল পাতা
চাঁদ মুখো সন্তান তোরা জ্যোৎস্না রাতে স্মৃতি কথা করেছি চয়ন
মিথ্যার বসতি ভেঙ্গে হৃদয়ের গৌরবে কর সবে বিবেকের উন্নয়ন।