দীর্ঘ অভাব অনটনের পর প্রাণ ফিরে আসে নবান্নে। পরিবারের সকলে ব্যস্ত দিন কাটায় ফসল ঘরে তুলতে। ঘরে ঘরে পিঠার উৎসব। আজ সবই স্বপ্ন এবং স্মৃতি। শহরায়নের ফলে গ্রামীণ স্মৃতি তেমন চোখে পরে না। অন্য দিকে কৃষকের মুখে হাসি নেই। ফসলের দাম নেই কিন্তু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম আকাশচুম্বী। তাই এখন নবান্নে কৃষক হাসে না; রংহীন নবান্ন জীবনকে বিষিয়ে দেয়। তাই এই ছড়া কবিতা লেখার চেষ্টা।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ জানুয়ারী ১৯৮৬
গল্প/কবিতা: ৩৪টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - নবান্ন (অক্টোবর ২০১৯)

রংহীন নবান্ন
নবান্ন

সংখ্যা

মোট ভোট

এস জামান হুসাইন

comment ৬  favorite ০  import_contacts ১০০
আগুন মাসে ফাগুন দেশে
হলুদ মেখে পরীর বেশে
এলো ঐ নবান্ন।
সুরে সুরে, গানে গানে
কৃষক ছোটে মাঠের পানে
আনবে ঘরে ধান্য।

মুক্তা হাসে ঘাসের ডগায়,
ঝিঙে নাচে লতার আগায়
গায় নবান্নের ঐ গান।
দুঃখ হাসি সবই ভূলে
সোনার ফসল ঘরে তুলে,
নবান্ন আনে প্রাণ।

হৃদয় হানে স্মৃতিগুলি
মায়ের হাতের পিঠাপুলি,
নতুন ধানের অন্ন।
কাদা মাটির ধান কুড়ানী,
ফল ফসলের রাজা রানী
সবই আজি স্বপ্ন!

চারশ টাকা মন ধান বিকায়,
ইলিশ কিনে হাজার টাকায়
ভাবছ ওদের বন্য!
নেই সুখ নেই, নেই কোন আলো,
আসল নিয়ে আঁধার কালো
রংহীন ঐ নবান্ন।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement