এক গভীর ভালোবাসার কাহিনী .....
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
গল্প/কবিতা: ২৭টি

সমন্বিত স্কোর

৫.০৮

বিচারক স্কোরঃ ২.৬৮ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৪ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftগল্প - একটি বিয়ে (আগস্ট ২০১৯)

প্রতীক্ষার অবসান
একটি বিয়ে

সংখ্যা

মোট ভোট ১৬ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.০৮

বিশ্বরঞ্জন দত্তগুপ্ত

comment ১৩  favorite ০  import_contacts ৫০৮
জায়গাটা কলকাতা শহর থেকে অনেকটাই দূরে । উড়িষ্যার কন্ধমাল জেলার আদিবাসী অধ্যুষিত একটি অতি মনোরম শৈলশহর । পূর্বঘাট পর্বতশ্রেনীর বিভিন্ন শৃঙ্গগুলি উঁচুনিচু ছন্দে ঘন সবুজে বেস্টিত এই শহরটিকে ঘিরে আছে । চারিদিকে চোখ মেলে তাকালে পাইন গাছের জঙ্গল , নিবিড় শালবন , গোলমরিচ আর কফির বাগিচা কিংবা ধুধু প্রান্তরের সবুজ উপত্যকা সারা দেহমনে এক অনাবিল আবেশ এনে দেয় । ভ্রমন পিপাসু মানুষজনদের সাথে সাথে দেশের বিভিন্ন প্রান্তরের স্কুল , কলেজ থেকে শিক্ষক , শিক্ষিকা , ছাত্র-ছাত্রীরা এখানে আসেন শিক্ষামূলক ভ্রমনের উদ্দেশ্যে । অলিখিত প্রথা অনুযায়ী এই শিক্ষামূলক ভ্রমন শেষ করে চলে যাবার আগের দিন ছাত্র-ছাত্রী , শিক্ষক , শিক্ষিকারা এই অঞ্চলের গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে " গেট টুগেদারের " সাথে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে । গন্যমান্য ব্যক্তিরা এই অঞ্চলের নানা বিষয়ের অনেক অজানা তথ্যাদি ছাত্ৰ-ছাত্রীদের কাছে পেশ করেন তাদের এই শিক্ষামূলক ভ্রমনকে আরো সুন্দর করে তোলবার জন্য । আজ সেইরকমই একটি আলোচনা সভার কাজ শেষ হবার পর অনির্বাণ মুখার্জী তাঁর ড্রাইভারকে বললেন - এই একটুখানি পথ আজ আমি হেঁটেই বাংলোতে চলে যাবো ।

অনির্বাণ মুখার্জী । বয়স প্রায় ৫০ ছুঁই ছুঁই । গায়ের রঙ ফর্সা , সুন্দর স্বাস্থ্য আর প্রায় ছ'ফিটের কাছাকাছি লম্বা । মাথা ভর্তি ঘন কাঁচা-পাকা চুল । চোখে দামী রিমলেস বিদেশি ফ্রেমের চশমা । গলার স্বরটি গমগমে , সব মিলিয়ে বেশ ব্যক্তিত্বপূর্ণ চেয়ারা । ঠোঁটের কোনায় প্রায় সবসময় লম্বা দামী চুরুট । এখানকার বন দপ্তরে খুব উচ্চপদে অধিষ্ঠিত । সরকারি বিশাল বাংলোর বড় হলঘরটার পর্দাটা সরিয়ে কাঁচের জানালাটা বন্ধ করতে গিয়ে টের পেলেন বাহিরে প্রচন্ড ঠান্ডা পরেছে । গায়ের দামী কাশ্মীরি শালটাকে ভাল ভাবে জড়িয়ে নিয়ে আরাম কেদাড়ায় বসে সবে বিদেশি " স্কচের " বোতলটা খুলেছেন , ধনঞ্জয় এসে বললো - স্যার , বাংলোর গেটে দারোয়ানের কাছে দু'জন মহিলা এসে আপনার সঙ্গে দেখা করতে চাইছেন । আপনার নির্দেশ অনুযায়ী অচেনা লোকেদের দারোয়ান দেখা করতে না দেওয়াতে তাঁরা বলছেন - তাঁরা কলকাতা থেকে এসেছেন আর আপনার সঙ্গে দেখা করাটা খুব জরুরী , একটিবার দেখা করেই চলে যাবেন । অনির্বাণ অবাক হয়ে একটু চিন্তা করে " স্কচের " বোতলটাকে সরিয়ে রেখে ধনঞ্জয়কে বললেন - ওঁনাদের ভিতরে নিয়ে এস ।

অনির্বাণের যেন আকাশ থেকে পরবার মতন অবস্থা । কিছুটা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে ভালকরে দেখে নিয়ে এক অতি বিস্ময় দৃষ্টি সহকারে বললেন -- মেঘমালা তুমি ?? তুমি এখানে ? আমিতো বিশ্বাসই করতে পারছি না । তারপর বিস্ময়ের ঘোরটা কাটিয়ে ব্যাস্ত হয়ে বললেন - তোমরা দরজার বাহিরে দাঁড়িয়ে কেন ! ভিতরে এস । একটুক্ষন চুপ করে মেঘমালাকে দেখে নিয়ে বললেন - তোমার সঙ্গে ইনি কে ? তারপরে একটু স্বাভাবিক হওয়ার পর বললেন - তোমাকে একেবারে আমার বাংলোতে দেখে আমি সত্যি খুব অবাক হয়ে গিয়েছি । যাক , এবার তোমার কথা বলো । তুমি কিন্তু ঠিক আগের মতোই আছ শুধু একটু মোটা হয়ে গেছো । এই শৈল শহরে তোমরা নিশ্চই বেড়াতে এসেছো । কোন হোটেলে উঠেছ ? তোমার ফ্যামেলি কোথায় , তাঁরা কি সবাই হোটেলেই আছেন ? একটু থেমে বললেন - একটা কথা জানতে খুব ইচ্ছে করছে । তুমি কি করে জানলে আমি এই জায়গায় আর এই বাংলোতে থাকি । এই দেখ , আমি নিজেই বকবক করে চলেছি । এবার তোমার কথা বল । তোমার সঙ্গে আমার কতদিন পরে দেখা .......

মেঘমালা আস্তে আস্তে মাথা তুলে অনির্বাণের দিকে তাকিয়ে বলল - ঠিকই বলেছ , অনেকদিন পর । তোমার সঙ্গে আমার প্রায় দীর্ঘ ২৬ বছর পর দেখা । একটা অজানা ছোট হাসি দিয়ে বলল - তোমার কথা বলার স্টাইলটা ঠিক আগের মতোই আছে । আগে খুব সিগারেট খেতে এখন দেখছি চুরুট খাচ্ছ আর চেহারাটা তোমার আগের তুলনায় একটু ভারিক্কি হয়েছে । তারপর একটু অন্যমনস্ক হয়ে বলল -- আমি এখানে এসেছি আমাদের কলেজের ছাত্রীদের সাথে এক শিক্ষামূলক ভ্রমনে । আর আমার ফ্যামেলি !! .... আসলে আমার জীবনে বিয়ের পিঁড়িতে বসা হয়নি , বলতে পার আমি ইচ্ছে করেই বিয়েটা করিনি । আমার সঙ্গে যিনি এসেছেন , তিনি হলেন " প্রমীলা দি " । আমাদের কলেজের প্রিন্সিপাল । প্রমীলাদি বিয়ে করেন নি । সিঁথির মোড়ে প্রমীলাদির ফ্লাটে আমরা দু'জন একসঙ্গে থাকি । প্রমীলাদি আমার দিদি , আমার গার্ডিয়ান , উনি আমার সবকিছু । তারপর একটু থেমে বললো -- আজ বিকেলে হঠাৎ করেই তোমাকে আমি দুর থেকে দেখেই চিনতে পারি । আমি কল্পনাই করতে পারি নি তোমাকে এখানে এইভাবে দেখতে পাব । আজ তুমি যখন আমাদের কলেজের ছাত্রীদের সামনে শিক্ষামূলক ভ্রমনকে কেন্দ্র করে এই অঞ্চলের অজানা তথ্যগুলি সুন্দর ভাবে বলছিলে , তখনই খুব ইচ্ছে হয়েছিল তোমার সঙ্গে কথা বলতে । কিন্তু আমি পারিনি । এত বছর পর অত লোকজনের সামনে যদি আমাকে চিনতে না পার , বা চিনলেও তোমার প্রতি একসময় আমার বাবা , মা অন্যায় ভাবে যে দুর্ব্যবহার করেছিল , সেটা যদি তুমি আমাকে ফিরিয়ে দাও সেই ভয়ে । মেঘমালা সজল চোখে বললো -- কিন্তু তুমি বিশ্বাস কর , আমি মনের থেকে বলছি , সেদিন তোমার প্রতি আমার ভালবাসাতে কোন ভেজাল ছিল না । প্রমীলাদি আমার জীবনের সব কিছুই জানে আর জানে বলেই আমাকে একরকম জোর করেই তোমার কাছে নিয়ে এসেছে তোমাকে সেদিনের প্রকৃত ঘটনাটা জানাবার জন্য । তুমি হয়ত আমাকে ভুল বুঝে অভিমান করে থাকতে পার । মেঘমালা চোখের জল মুছে নিয়ে পরিবেশকে হালকা করবার জন্য অনির্বাণকে বললো -- এবার তোমার কথা বলো । বাড়ীতেতো অন্য কাউকে দেখছি না ! তোমার স্ত্রী , সন্তান তারা কোথায় ? তারা কি সব কলকাতায় গেছে ? অনির্বাণ হেসে বললো - এই দেখ , কথাবার্তায় আমি ভুলেই গিয়েছিলাম , তোমাদের এখনও কফি খাওয়ানো হয় নি । ধনঞ্জয়কে ডেকে কফি করতে বললেন । মেঘমালাকে হাসতে হাসতে বললেন -- এই ধনঞ্জয়ই আমার আপন লোক , আমাকে খুব ভালবাসে আর দেখাশুনা করে । আসলে কি জান , অনেক ভাবনা , চিন্তা করেই বিয়েটা আমি আর করতে পারলাম না ।


........ বিয়ের কথাটা সরাসরি মেঘমালার বাবা , মাকে বলতে , তাঁরা অনির্বাণকে বললেন -- তোমার সাহস দেখে আমরা অবাক হয়ে যাচ্ছি । সামান্য কটা প্রাইভেট টিউশানি করে তুমি আমাদের মেয়েকে বিয়ে করতে চাইছ ! অনির্বাণ ঠান্ডা মাথায় বোঝাল -- আমি বিভিন্ন গভরমেন্ট সার্ভিসের চাকরীর পরীক্ষা দিয়েছি , আশা করি চাকরী পেয়েও যাব । আপনারা আর কয়েকটা দিন অপেক্ষা করুন । মেঘমালার বাবা , মা অনির্বাণকে চুড়ান্ত অপমান করে বললো -- কোনদিন যেন তোমাকে আমাদের বাড়ীতে আর না দেখি । আশাকরি মেঘমালার সঙ্গে তুমি আর কোনদিন যোগাযোগ রাখবে না । আর একটা কথা শুনে রাখ - আমরা মেঘমালার বিয়ে এক উচ্চ আয়ের ইঞ্জিনিয়ার ছেলের সঙ্গে ঠিক করে ফেলেছি । এরপর একরকম অনির্বাণের ইচ্ছেতেই , যদি একই পাড়াতে থাকার দরুন মেঘমালার সঙ্গে দেখা হয়ে যায় , সেই কষ্টের হাত থেকে রেহাই পেতে তার বাবা মা অনির্বাণকে নিয়ে এই পাড়া ছেড়ে কলকাতার অন্য এক জায়গায় বাড়ী ভাড়া নিয়ে চলে যায় ।

মেঘমালার তার বাবা মার পছন্দ করা পাত্রের সঙ্গে বিয়ে করার কোন রকম ইচ্ছেই ছিল না । সে তার বাবা মাকে বারবার বোঝাতে চেয়েছে সে অনির্বাণকে ভালবাসে আর অনির্বাণ চাকরী পেলে সে তাঁকেই বিয়ে করবে আর আশা করা যাচ্ছে সে ভাল চাকরী পেয়েও যাবে । ততদিন যেন বাবা মা অপেক্ষা করে । কিন্তু তারা সেদিন মেঘমালার কোন কথাই শুনতে চাননি । এরপর বিয়ের কিছুদিন আগে মেঘমালা জানতে পারে পাত্র ছেলেটি একটি দুঃশ্চরিত্র , লম্পট আর মাতাল । বাবা মাকে বলা সত্ত্বেও কোন কাজ হচ্ছে না দেখে অনির্বাণের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে কিন্তু অনির্বাণদের নুতন বাড়ীর ঠিকানা তার জানা ছিল না , অগত্যা একরাত্রে বাধ্য হয়ে বাড়ী থেকে পালিয়ে এসে আশ্রয় নেয় প্রমীলাদির বাড়ীতে । এরপর বাবা মা অনেক বলা সত্বেও মেঘমালা আর বিয়ে করতে রাজি হয় নি । প্রমীলাদির সাহায্যে , উৎসাহে আর পড়াশুনা করে অবশেষে প্রমীলাদির কলেজেই পড়বার সুযোগ পায় ।

প্রমীলাদি অনির্বাণকে বললো -- মেঘমালা আমার কাছে চলে আসবার পর কিছুদিন পরে কয়েকদিনের ব্যবধানে মেঘমালার বাবা মা মারা যান । তারপর থেকে ও আমার কাছেই থাকে । ওকে আমার বোন বলতে পার আবার মেয়েও বলতে পার । তোমার সঙ্গে এতদিন পরে মেঘমালার দেখা হয়ে ভালই হলো । মেঘমালা এতদিন ধরে তার মনের মধ্যে জমানো কথাগুলি তোমাকে বলতে পেরে বোধহয় কিছুটা হালকা হতে পেরেছে আর আমরা তো কাল সকাল নটার মধ্যে বেড়িয়ে পরবো কলকাতা যাবার উদ্দেশ্যে । প্রমীলাদি একটুক্ষন চুপ করে থেকে ধীরে ধীরে বললেন -- আসলে মেঘমালা তোমাকে ভীষন , ভীষন ভালবাসে সেটা আমি ওর সঙ্গে এতদিন থেকে বুঝতে পেরেছি । ও তোমাকে পাগলের মত সবসময় খুঁজেছে প্রকৃত ঘটনাটা জানাবার জন্য । আমি ওর মনের প্রকৃত অবস্থা বুঝতে পেরে একান্ত নিরুপায় হয়ে ওকে এই বলে বুঝিয়েছি , তুই সবসময় অনির্বাণের কথা ভেবে কেন কষ্ট পাচ্ছিস ? সে হয়তো এখন ঘোরতর সংসারী হয়ে সুখেই আছে ।

অনির্বাণ রুমাল দিয়ে চশমাটা মুছে নিয়ে মৃদু হেসে বললো -- আপনি ঠিকই বলেছেন , এতগুলি বছর আমি শুধু মেঘমালার কথা ভেবে ভেবে এত বড় বাংলোতে একা একা খুব সুখেই আছি !!!!! অনির্বাণ হঠাৎ হাতঘড়ি দেখে বললো -- রাত প্রায় নটা বাজে , এখানকার রাস্তাঘাট রাত্রিবেলা মোটেই ভাল নয় বিশেষ করে এই সময়টায় বন্য জীবজন্তুর আনাগোনা শুরু হয়ে যায় । আজ আবার ঠান্ডার দাপটটা খুব বেশি আর তাছাড়া কাল সকালেই আপনারা কলকাতা চলে যাচ্ছেন । ধনঞ্জয়কে ডেকে বললেন -- ড্রাইভারকে বল এনাদের হোটেলে পৌঁছে দিয়ে আসতে ।

সকালবেলা শিক্ষক - শিক্ষিকা , ছাত্রীরা সবাই তৈরি এখুনি তাদের কলকাতা ফিরে যাবার বাস চলে আসবে । প্রমীলাদি মেঘমালাকে বললেন -- তুই কাঁদছিস কেন ? চোখের জল মোছ । জীবনে পথ চলতে গেলে অনেক বাস্তব পরিস্থিতির সঙ্গে মোকাবিলা করে নিজেকে মানিয়ে নিতে হয় । মেঘমালা জল ভরা চোখে বললো -- সেতো আমার সঙ্গে দেখা করতে এলো না , আমি যে তাঁকে শুধু একটিবার দেখব বলে অপেক্ষা করে রয়েছি । আর হয়ত তাঁর সঙ্গে আমার কোনদিনও দেখা হবে না । হঠাৎ হোটেলের সামনে বন দপ্তরের জীপ গাড়ীটা জোরে এসে ব্রেক কসলো । জীপ গাড়ী থেকে নেমে এলেন অনির্বাণ মুখার্জী । হাসি মুখে বললেন -- মেঘমালা , আমি তোমাকে নিতে এসেছি । চলো আমার সঙ্গে তোমার নিজের ঘরে , এখন থেকে তুমি আমার কাছেই থাকবে । আজকের এই আনন্দের দিনে যদি আমার বাবা , মা বেঁচে থাকতেন , তাঁরাই তোমাকে বরণ করে ঘরে নিয়ে আসতেন ..... । তবে , আমার এখানকার কিছু ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব আর বাংলোর দাসদাসী , আর্দলী সবাই অধীর আগ্রহে আনন্দ সহকারে নতুন " ম্যাডামের " আগমনের অপেক্ষায় রয়েছে । মেঘমালা প্রমীলাদিকে জড়িয়ে ধরে বললো -- তুমি কাঁদছ প্রমীলাদি ? প্রমীলাদি চোখের জল মুছে নিয়ে মেঘমালাকে বুকে জড়িয়ে আশীর্বাদ করে বললেন -- এটা আমার আনন্দের অশ্রু আর তাছাড়া মেয়ে বিয়ের পর স্বামীগৃহে চলে যাওয়ার সময় মা তো কাদঁবেই ।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement