জল-সিঞ্চিত তোমার শুভ্র কায়া
হেরিছে আঁখি, কাঁপিছে লাজুক হিয়া!

বাহিরে যে জল ঝরিছে মুষলধারে
যে জল টলিছে তোমার শাড়ীর পাড়ে,
সেই জলে আজি বাহিরিতে চাই
সুরুজের দেখা পাই বা না পাই
কতদিন পরে জাগেনিগো ভয় তোমার ওষ্ঠাধরে,
যদিও ভেবেছি বাহিরে যাবনা, গেনু গো তাহার তরে।

এ জল যেন গো স্বর্গ-অমৃত মিশা
পিয় নাহি পিয় বাড়িবে মরম-তৃষা।


শিউলি ঝরিছে শিউলিতলে-লাগিছে বেশ,
কুড়ায়ে সে ফুল বাঁধিব তব সিক্ত কেশ।

জাগিছে কি আজি মন-বাসনা মনের ভুলে,
শুন্যপায়ে হাঁটিবে এ নিশায় কদম-তলে?
দূর হতে দূরে আছে সেই বাগ
নিব নাহি নিব করনাকো রাগ
তব পদতলে কুসুম-পরাগ লুটিছে তোমার তরে,
অতদূর তবে নাহি গেনু ওগো শিউলি, মালতি ছেড়ে।

হেথা যে আকুলায় চঞ্চল হিয়া তোমার চাহনিতে,
দুটি মন ওগো রহিবে দু’জনার এ বরষা নিশীথে।