আচ্ছা বলতে পারো-
বেহেশতে কি ভালোবাসা পাওয়া যাবে?
প্রিয়ার তর্জনী নিঃসৃত উষ্ণ আদরের
নহর বইছে যেখানে,
হৃদয়নিংড়ানো আধটুকু চুমুর
পেয়ালা নিয়ে ঘুরবে কি কেউ?
প্রেমের শীতলপাটিতে আলুথালু শুয়ে
রাখবে কি চোখে চোখ, আঙুলে আঙুল
মর্তলোকের অভাগা যত প্রেমিকজন?
পুঁইববিচির মত টকটকে লাল ঠোঁটে
রমনীরা করবে কি বন্দনা
তাবৎ স্বচ্ছ মানস-মনের?

যখন বসবে পাপ-পুন্যের বিচার পাল্লা,
এক আধুলি পুণ্যি মেপে
পোয়াটাক্ ভালোবাসা জুটবে কি পাতে?
কেবল- কেবল ওই টুকুনের জন্যে মাত্র
যেন কৃপা হয় প্রেমময় ঈশ্বরের।
ইহলোকে নাই বা পেলাম, না-ই বা হোলো
পরলোকে তৃষিত যেন না রাখেন।

এই দ্যাখো না কি না কি বকছি!
কালের দয়া ফুরিয়ে আসছে বোধ হয়।
প্রেমের বান্দেগি করতে করতে
ক্লান্ত মৃত্যুপথযাত্রী আমি আজ।
বেহেশতে কি একটি একাগ্র হৃদয় হবে?
যা কেবলই নির্মোহ নিষ্কাম,
হবে কি তার জয়জয়কার?
সেই একটি বেহেশত- যেখানে
ঈশ্বরকে ঘিরে থাকবে প্রেম,
আর প্রেমকে ঘিরে ঈশ্বর?