লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১০ ডিসেম্বর ১৯৯৭
গল্প/কবিতা: ২টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftস্বাধীনতা দিবস (মার্চ ২০১৭)

অতৃপ্ত জগৎ
স্বাধীনতা দিবস

সংখ্যা

শামীম আহমেদ

comment ১  favorite ০  import_contacts ২০৯
"অপরাধীকে বাইরে থেকে দেখে তাকে ঘৃণা করনা । যদি তাকে ঘৃণা করতে চাও তবে আগে তার সাথে মিশে তার ভেতরে প্রবেশ করো । প্রবেশ করে তাকে জানার চেষ্টা করো ।
কেননা কেউ ইচ্ছে করে অপরাধ করে না । পরিবেশের বিরোধিতার কারণে সে অপরাধ করতে বাধ্য হয় । এতে সে একা দোষী নয়,এতে আমাদের সমাজের সবারই দোষ রয়েছে । তাকে অপরাধ করার পেছনের মূল কারণ হচ্ছি আমরাই । আমরা তার স্বাভাবিক জীবনে বিরোপ প্রভাব ফেলার জন্য সে অপরাধ জগতের দিকে পা বাড়ায় ।
তাই একজন অপরাধীকে বাইরে থেকে ঘৃণা করার আগে, তার ভেতরে প্রবেশ করে তার এ অন্ধকার জগতে আসার গল্পটা জেনে তাকে ঘৃণা করো । তার আগেনা ।"

-আমি আমার বাবার এই মহামূল্যবান কথা গুলো সব সময়ই বিশ্বাস করি । আমার বাবা উনার এসব মূল্যবান কথা গুলো উনার ডাইরিতে লিখে গেছেন । বাবা নেই কিন্তু স্মৃতি হিসেবে এই ডাইরিটি আছে, যা আমাকে জীবন যুদ্ধে অনেক অনুপ্রাণিত করেছে । আমার বাবা কোন মহাজ্ঞানী ছিলেন না, কিন্তু উনার কথা গুলো বাস্তবতা ও কল্পনার মধ্যে ফারাক ধরিয়ে দেয় । আমি বাস্তবাদী মানুষ কেননা দিন দুপুরে কল্পনা দেখা কোন জ্ঞানী লোকের কাজ হতে পারেনা । এক প্রধান কারণ কল্পনা কখনোই বাস্তবে পরিণত হয় না ।
আমি আমার বাবার দেখিয়ে যাওয়া পথই অনুসরণ করি ।
.
* * * * *
.
আমি এখন শাবিতে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে কম্পিউটার সাইন্স নিয়ে লেখাপড়া করছি । আমার বন্ধু-বান্ধব নেই বললেই চলে । তাই ভার্সিটিতে ক্লাস শেষ করে সোজা বাসায় চলে আসি,কখনো কোথাও আড্ডা দেইনা । পরিচিত কারো সাথে দেখা হলে ভাল-মন্দ জিজ্ঞেস করেই কথা-ভার্তা পর্ব শেষ করে ফেলি ।
.
সেদিন ভার্সিটি থেকে ফিরছিলাম, হঠাৎ দেখি রাস্তার ধারে যেখানে মানুষ জনের যাতায়াত খুব কম সেখানেই একটি মেয়ে দাড়িয়ে । মেয়েটির সামনে দুটি ছেলেও, আমার আকর্ষণ মেয়েটির দিকেনা ছেলে দুটির দিকে ছিল, কেননা তাদের হাতে ছুরি ছিল । দেখেই বুঝা যাচ্ছে ছিনতাইকারী ।
.
ছেলেদুটির মূখ দেখতে পারছিনা পিছন দিকে ঘুরে ছিল বলে । ওরা ছুরি দেখিয়ে মেয়েটিকে ভয় দেখাতে লাগল । কিন্তু মেয়েটি ওদের কিছুই দিতে চাচ্ছে না । শেষে বাধ্য হয়ে ওরা মেয়েটির কাছ থেকে জোর করে ব্যাগ আর মোবাইলটি নিয়ে নিল । মেয়েটি অসহায়ের মত দাড়িয়ে তাকল । এই মুহূর্তে আমার কি করা উচিৎ বুঝে উঠতে পারছিলাম না । আমি কি ওদের আটকাতে পারব, আটকাবইবা কেমন করে ওরা যে দুজন তাও অস্ত্রসমেত । যাবার সময় শুধুমাত্র একটা ছেলের মূখ দেখলাম । দেখেতো ভদ্রোই মনে হল,কিন্তু চেহারা দেখে কি আর মানুষ চেনা যায় ।
অতঃপর মেয়েটিকে সেখানে রেখেই স্থান ত্যাগ করলাম ।
.
* * * * *
.
-পরদিন ক্লাস শেষ করে বাড়ি আসার জন্য রওনা করলাম । হঠাৎ দেখি গতকালকের সেই ছেলেটি কেন্টিনে বসে চা খাচ্ছে । যে কিনা গতকাল আমার চোখের সামনেই ছিনতাই করেছিল আর আমি শুধু চেয়ে চেয়ে দেখেছিলাম । বিষয়টা সত্যি লজ্জাজনক ।
.
জানিনা কেন ছেলেটার সাথে দেখা করতে ইচ্ছে করল । কিন্তু পরক্ষণে ভাবলাম দূর ও একটা অপরাধী, ওর সাথে আমি দেখা করব কেন । এসব ভাবনার মধ্যে হঠাৎ বাবার সেই কথা গুলো মনে পড়ল, তাই দেখা করার সিদ্ধান্ত নিলাম । কেন্টিনের দিকে গেলাম, গিয়ে দুটি সিগারেট কিনলাম । যদিও আগে কখনো সিগারেট খাওয়াতো দূরের কথা স্পর্শও করিনি । কিন্তু এই মুহূর্তে এই আইডিয়া ছাড়া অন্য কোনো আইডিয়া আমার মাথায় আসল না ।
.
-"এই যে ভাইয়া আপনার কাছে আগুন হবে? "
সিগারেট হাতে নিয়ে ছেলেটাকে জিজ্ঞেস করলাম । ছেলেটি আমার দিকে বিরক্তির চোখে তাকাল, তাকিয়ে লাইটার বের করে দিল । সিগারেটে আগুন ধরিয়ে যেই টান দিছি ওমনি খুক খুক করে কেশে দিলাম । ছেলেটি হেসে দিল, মনে মনে ভাবতে লাগলাম দূর ছাই এই জগন্য জিনিসটা খেয়ে মানুষ কি মজা পায় । আমার হাব-ভাব দেখেই ছেলেটি বুঝে ফেলল আমি এই প্রথম টানছি । আমাকে অবাক করে দিয়ে ছেলেটি বলল-
-"এই লাইনে প্রথম, কারণটা কি? "

-"কোন কারণ নেই । কিন্তু আপনি বুঝলেন কেমন করে প্রথম?

-"আপনার হাব-ভাব দেইখ্যাই বুঝা যাইতাছে । কোন কারণ ছাড়া কেউ এই লাইনে আসেনা । সমস্যা নাই কইয়া ফালান কারণ কি?"

আমি কি বলব বুঝতে পারছিলাম না । অবশেষে একটু ভেবে একটা মিথ্যে গল্পের তীর ছুরলাম । দেখলাম তীর জায়গা মতো বেদ করেছে ।
.
আমার এই মিথ্যে কাহিনী শুনে ছেলেটি বলল-

-"আমার সাথে চলো, সব কষ্ট দূর হয়ে যাবে ।"

-"কোথায় যাব যে সব কষ্ট দূর হয়ে যাবে? "

-"আরে চলো, গেলেই দেখতে পারবে ।" বলে ছেলেটি হাটা ধরল, আমিও হাটতে লাগলাম । অটোতে করে ছেলেটি আমাকে একটা পুরনো ভাঙ্গা বাড়িতে নিয়ে আসল ।
.
এখানে এসে যা দেখলাম তাতে নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না । এখান অনেক ছেলে-মেয়েরা বসে নেশা করছিল । বেশীর ভাগই স্টুডেন্ট বলে মনে হচ্ছে । আমাদের ডিপার্টমেন্টের কয়েক জনকেও দেখলাম । খুব খারাপ লাগল, এভাবে যদি এরা নেশায় বিভোর থাকে তাহলে পুরো জাতির কি হবে ।
ছেলেটা আর আমি এক কর্ণারে বসেছিলাম । আমার হাতে একটা কাচের বোতল ধরিয়ে দিল, দেখলাম ফেন্সিডিল । দিয়ে বলল-"খাও মিয়া খাও! সব কষ্ট দূর হয়ে যাবে ।"
.
আমি এটা খাব কি করে দ্বিধায় পড়ে গেলাম । আমার কেমন যেন লাগছিল, বোতলের মূখ খুলতেই উফফ কি বখাটে গন্ধ বের হল । নাক চেপে হালকা একটু মূখে নিলাম । ঐ সময় ছেলেটিকে একটা লোক ডাক দিল । ছেলেটি যাওয়ার সাথে সাথেই সবার অগুচরে মূখ থেকে এসব জগন্য মাদক ফেলে দিলাম । ব্যাগ থেকে তারাতাড়ি পানির বোতল বের করে কুলি করে পানি খেলাম । .
ছেলেটি ফিরে আসতেই বললাম-

-"ভাইয়া আজকে তাহলে উঠি ।

-"এখনি যাবা, খাইছতো?

-"হুমম ভাইয়া খাইছি । মা কল দিচ্ছেন বাসায় যাওয়ার জন্য ।

-"আচ্ছা যাও তাইলে, আবার দেখা হবে ।


-"জ্বী ভাইয়া ।" বলেই এদিক ওদিক না তাকিয়ে সোজা বাসায় চলে আসলাম ।
.
* * * * *
.
তারপর এই ছেলেটির সাথে নিয়মিতই দেখা হত কথা হত । এভাবে কিছু দিন চলাফেরা করার ফলে আমরা অনেক ভালো বন্ধু হয়ে যাই । একদিন কথায় কথায় ওর এই অন্ধকার জগতে আসার গল্পটা জানতে চাইলাম । ছেলেটি বলতে শুরু করল, ওর নাম তানভীর । মধ্যবিত্ত মা-বাবার একমাত্র সন্তান । শাবিতে প্যাথোলজি নিয়ে ৩য় বর্ষে স্টাডি করে । মা-বাবাকে নিয়ে অনেক সুখেই দিন কাটছিল । কিন্তু সব সুখ সেদিন থেকে হারিয়ে গেল, যে দিন সামিরা নামের মেয়েটি তানভীরের ভালবাসা প্রত্যাখ্যান করল । তানভীর সামিরাকে অনেক ভালবাসত, কিন্তু বড় লোকের অহংকারী বেটি তানভীর মধ্যবিত্ত বলে প্রত্যাখ্যান করল । সেদিনের পর থেকেই তানভীর এই অন্ধকার জগতে পা বাড়ায় । আমার বাবা এসব মানুষের ভেতরে প্রবেশের কথা বলেছেন, আর আমি বিশ্বাস করি মানুষ যেমন খারাপ হতে পারে তেমনি ভালও হতে পারে । তাই তানভীরকে আমি ভাল পথে আনার চেষ্টায় থাকলাম ।
.
* * * * *
.
আমি খুঁজ নিয়ে জানতে পারলাম তানভীর যে মেয়েটিকে ভালবাসত, ঐ মেয়েটি আমাদের ডিপার্টমেন্টে পড়ে । মেয়েটির সাথে তানভীরের এক বছর এ্যাফেয়ার ছিল । তানভীর সামিয়ার সাথে ভালোই সম্পর্ক ছিল তানভীরের । কিন্তু ধীরে ধীরে সামিয়া তানভীরকে দূরে টেলে দিতে থাকে । তানভীর বিষয়টা খেয়াল করছিল, কিন্তু কেন তা কখনোই জানতে চায়নি । কারণ তানভীর সামিয়কে এতটাই বিশ্বাস করত যে কখনো কল্পনাও করেনি সামিয়া তার সাথে এমনটা করতে পারে । তানভীর সব সময়ই ভাবত সামিয়া তানভীরকে ছাড়া অন্য কারো হতে পারেনা । কিন্তু হঠাৎ একদিন সামিয়া তানভীরের কাছে একটা ছেলেকে নিয়ে এসে বলে এটা তার বয় ফ্রেন্ড । তানভীর কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিল না । তানভীর ভয়ে ভয়ে সামিয়ার কাছে জানতে চায় ও মজা করছে কি না । ঐ দিন তানভীর গরিব বলে সামিয়া তানভীরকে অনেক অপমান করে । এরপর থেকেই তানভীরের এই অবস্থা ।
.

ক্লাস শেষে আমি আর তানভীর কেন্টিনে বসে চা খাচছিলাম ।
হঠাৎ দেখি সেই মেয়েটি একটা ছেলের সাথে আসছে । ভাব দেখেই বুঝা যাচ্ছে এই ছেলেটি বোধহয় সামিরার বয় ফ্রেন্ড । ওরা হেসে হেসে বাইক নিয়ে আমাদের সামনে দিয়ে চলে গেল । আমি তানভীরের দিকে তাকালাম দেখলাম ও রাগে অপমানে ভেতরে ভেতরে জ্বলে যাচ্ছে ।
.
* * * * *
.
সন্ধ্যার দিকে তানভীরকে কয়েকবার কল দিয়েও পাইনা ।তাই ওর হোস্টেলের দিকে ছুটলাম । এ কয়দিনে তানভীরকে মাদকের জগৎ থেকে অনেকটাই সরিয়ে নিয়ে এসেছিলাম । কিন্তু আজ ঐই মেয়েটিকে এভাবে দেখে তানভীর আবার মদ খাওয়া শুরু করে দিয়েছে । রুমে ডুকতেই দেখি বোতলের প্রায় অর্ধেকই শেষ করে ফেলছে । তানভীরকে তামিয়ে শান্ত হতে বললাম । ও তারপরও খেতে চাচ্ছিল । আমি ওর হাত থেকে বোতল কেড়ে নিয়ে ওকে চেয়ারে বসালাম । তানভীর বলতে লাগল-
-"আমার সব শেষ হয়ে গেলরে বন্ধু, সব শেষ হয়ে গেল ।

-"তর কিছুই শেষ হয়নি, তুই একটু শান্ত হয়ে বস ।

-"কেমনে শান্ত হব বল? ঐ ডাইনি আমার সব শেষ করে দিল । যদি যদি ওরে এখন কাছে পাইতাম.....

-"থামলি কেন বল বল কাছে পাইলে কি করতি?

-"ঐ ডাইনিকে যদি এখন পেতাম ওর কি যে অবস্থা করতাম একমাত্র আল্লাহই জানে ।

-"ওর উপর প্রতিশোধ নিতে চাস?

-"কিহহহহহহ?

-"বললাম ওর উপর কি প্রতিশোধ নিতে চাস???

-"হ্যাঁ চাই, কিন্তু আমি যে এখনো ওকে ভালবাসি । আমি ওর কোন ক্ষতি করতে পারব না ।

-"ক্ষতি ছাড়াও ওর উপর প্রতিশোধ নিতে পারবি ।

-"কেমনে?

-"কেমনে শুনতে চাস?

-"হুম চাই । আমি ওর উপর অনেক বড় প্রতিশোধ নিতে চাই ।

-"তাহলে আমি যা বলব তাই শুনতে হবে । যা বলব তাই করতে হবে ।

-"তুই যা বলবি তাই শুনব তাই করব । বল এখন আমাকে কি করতে হবে ।

-"তাহলে শুন, আগে তকে এসব মদ, নেশা সহ সব ধরনের খারাপ কাজ ছাড়তে হবে ।

-"সবই ছাড়তে হবে??

-"উফফ কথা না, আগে আমাকে বলতে দে ।

-"আচ্ছা বল ।

-"এসব খারাপ কাজ ছেড়ে এতদিন যা করছিলি এখন থেকে ঠিক তার উল্টো কাজ গুলো করবি । কি বললাম বুঝতে পারছিসত??

-"হুমম বুঝছি । কিন্তু আমি প্রতিশোধ নেব কেমনে?

-"বলতেছি, তকে আবার পড়াশোনায় মন দিতে হবে । ঐ মেয়েটির সাথে যে ছেলেটি ছিল তার থেকে তকে স্ট্যান্ডার্ড হতে হবে ।

-"আমি কি পারব?

-"পারবি না কেন, অবশ্যই পারবি । তুই অনেক মেধাবী ছাত্র তকে যে পারতেই হবে । লেখাপড়া শেষ করে তকে নিজের পায়ে দাড়াতেই হবে । নিজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে ঐ মেয়েকে দেখিয়ে দে ও ই তর যোগ্য ছিল না ।

-"কিন্তু,,,,,,,

-"কোন কিন্তু না । দেখ যে মেয়ে ভালবাসায় ধনী-গরিবের ব্যাবধান খুঁজে, আর যাই হোক আমি মনে করি ঐই মেয়ের ভালবাসা কখনোই সুখের হতে পারে না । ও তর টাকাকে ভালবাসাবে তকে না । নিজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে এমন কাউকে জীবনসাথী হিসেবে বেছেনে যে তর টাকাকে না তকে ভালবাসবে । যে তর দুঃখ,কষ্ট,হাসি, কান্না, রাগ,অভিমানের কারণ হবে । তাছাড়া তর মা-বাবার কথাও ভেবে দেখ, উনারা তকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেন ।

-"এমন কইরাতো কখনো ভাবি নাই । দোস্ত তুই সত্যি আমার চোখ খুলে দিছিস । আমি এতদিন এই অন্ধকার জগতে এতই মগ্ন ছিলাম যে আমি আমার আসল সুখ, মা-বাবার কথাও ভুলে গেছিলাম । থ্যানক্স দোস্ত ।" বলেই তানভীর এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করে দিল ।
আমি ওর পিঠে হাত বুলিয়ে বললাম -"আরে দূর কি শুরু করলি, বাচ্চাদের মত কাদছিস কেন । আমি আছিতো ।"
.
.
একটা অতৃপ্ত আত্মাতে আলোতে আনতে পেরে নিজেকে স্বার্থক মনে হল । আজকে উপলব্ধি করতে পারলাম তানভীরের মতো এসব অন্ধকার জগতের মানুষদের একটু আলোর পথ দেখিয়ে দিলে, এরা নিজে থেকেই পুরোপুরি আলোতে আসতে সক্ষম ।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement