মানুষ! তুমি আছো? নাকি ছিলে?
তোমায় পড়ছে মনে, রংছটা মিছিলে
নাকি যাচ্ছ বিলীন, কঠোর মলীন, অন্ধ কল্পভূমি;
জানতে দিবে, একটুখানি, কেমন আছো তুমি?

মানুষ! তুমি যাচ্ছ নাকি চলে?
নাকি মিথ্যে ফাঁদে, ফেলছো গভীর জলে!
তোমার হালকা মধুর, স্নিগ্ধ সকাল, আগুন গরম ভাতে
বুঝতে দিবে, কোন ছলনায়, গা ঢাকা দাও রাতে?

সে যে অনেক কথা, রইছে জমা নিতি
কেন ধরা দাও? সেটাই তো মোর রীতি!
অবুঝ যতন, কয় ফোঁটা জল, নীল দরিয়ায় নায়ে
মানুষ! তুমি আসবে না আর? ফিরবে না এই গায়ে?

মানুষ! তুমি ঘুমিয়ে গেছ? লুকোচুরি অভিনয়?
আমার দিনের আকাশ ঘোলা, ঘনকালো মেঘময়
মিনতি রাখো, কথা শুনে যাও, চোখডানা দুটি মেল,
তাসের ঘরের তুরুপের তাস, কত বাজি খেলা খেল।

মানুষ! তুমি আছো? ছিলে কভু তুমি বেঁচে
তোমার ললাট, ভাঁজকরা থাক, ক্লান্ত তুমি নেচে
রঙ্গ-মাচান, নীলপোড়া ঠোঁট, ছন্দবিমুখ ছড়া
সে যে মানুষ নামের হতভাগা সুখ, অতৃপ্ত অধরা।