“প্রাপ্তিশূণ্য”

উপলব্ধি সংখ্যা

শিহাব হোসেন
গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে ছেয়ে গেছে চারপাশটা । আষাঢ় মাস । কখনো মেঘ তো কখনো বৃষ্টি ।

_ধুর ছাই । আজ ছাতা টা যে কেন আনলাম না । র্নিঘাত আজ বকা খেতে হবে মায়ের হাতে । ছেলে যে এত বড় হয়েছে মা যেন তা মানতেই চায় না ।

ছাউনির নিচে দাড়িয়ে কথা গুলো ভাবছিল নীল । মাটি কে যেন বৃষ্টি তার ভালোবাসা ক্রমেই বাড়িয়ে দিচ্ছিল । গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি যেন ঝড়ের আকার নিয়েছে । নীল ছাউনির নিচে দাড়িয়েই আনমনেই বৃষ্টি দেখছিল । হঠাত্ সে আবিষ্কার করল ছাউনির ওপারে একটি মেয়ে দাড়িয়ে , পরণে ছিল তার প্রিয় নীল রঙের শাড়ী আর হাত র্ভতি যেন একশ কাঁচের চুঁড়ি । ছাউনির বাহিরে হাত বাড়িয়ে বৃষ্টিকে ছুঁয়ে দিচ্ছিল । মেয়েটি যখন নীলের দিকে তাকালো নীল যেন হাজার ভোল্টের শক্ খেল ।

_একী তুমি । এখানে ?
_হুম আমি । চিনতে পেরেছ তাহলে ।
_কেন পারব না ! তা এত বছর পর ? কোথায় ছিলে ?
_চিটাগাং । জামানের পোষ্টিং হয়েছিল চিটাগাং এ । এখন ঢাকায় ।
_জামান ! হাজবেন্ড নিশ্চয় ?
_হুম ।
_ঢাকায় কোথায় উঠেছো ?
_বনানীতে । ওর অফিস থেকে একটা ফ্লাট দিয়েছে ।
_ও ।
_আন্টি ভালো আছেন ?
_হুম ।
_আচ্ছা , নীলাকে আনতে যেতে হবে । এখন আসি ।
_নীলা বুঝি মেয়ের নাম ?
_হুম ।
_সুন্দর ।
_এখন বরং যাই । ওর স্কুলের ছুটি হয়ে যাবে ।

বলেই তড়িঘড়ি করে চলে যায় মিথিলা ।
যখন ইউনির্ভাসিটিতে পড়ত মিথিলা তখন নীল ছিল তার সবচেয়ে ভাল বেস্ট ফ্রেন্ড । মুর্হূতেই এক সূতোয় গাঁথা সেই রঙিন দিন গুলো পার হতে লাগল তাদের । ক্লাস ফাঁকি দিয়ে রাস্তায় দাড়িয়ে ফুসকা খাওয়া , কথায় কথায় ঝগড়া , মিষ্টি শাসন , দুষ্টামি একরাশ অভিমান এমন কী মারামারি র্পযন্তও হয়ে যেত তাদের । এত বছর পর মিথিলাকে দেখে মুর্হূতেই স্মৃতির মায়াজালে যেন মাকড়সার খাদ্য বস্তু হিসেবে আটকা পরে গেল নীল । স্মৃতি গুলো মাকড়সা রুপে তাকে একটু একটু করে গিলে খাচ্ছে ।
আজ অফিস শেষ করেই নীল মিথিলার সেই পছন্দের লেকের পাড়ে গিয়ে বসল । লেকটা জুড়ে আজও আছে গাছ গুলো মাথা উঁচু করে হাত বাড়িয়ে ঐ আকাশ কে ছুঁয়ে । বৃষ্টির র্স্পশে গাছের পাতা গুলো যেন তাদের প্রাণ ফিরে পেয়েছে । হঠাত্ করেই নীল মিথিলার সেই পারফিউমের সু-গন্ধটার উপস্থিতি অনুভব করল । কিছু বুঝে উঠার আগেই একটি হাতের র্স্পশ অনুভব করল তার কাঁধে ।

_তুমি ?
_হুম,কী করছ এখানে ?
_কিছুনা
_অফিস তো শেষ,সন্ধ্যা হয়ে এল বাসায় যাবে না ?
_হুম যাব । আচ্ছা একটা কথা বলব ?
_বলো
_আমার চিঠিটার উত্তর দিলেনা কেন ?
_ঐ বইটার ভাঁজেই ছিল উত্তর তা । কেন অর্ণা তোমাকে বইটি দেয় নি?
_মানে কী ! ও তোমার বিয়ের দু'সপ্তাহ পর বইটা দিয়েছিল । খুলে দেখা হয়নি । মা অসুস্থ ছিল তাই ব্যস্ত ছিলাম ।
_ভালো । তা তোমার ছেলে না মেয়ে ?
_হা হা
_হাসলে কেন?
_কিছুনা । আচ্ছা তুমি এখন কেমন আছো ?
_মেয়ে সংসার নিয়ে অনেক ভালই আছি ।
_হুম নীলার বয়স যেন কত হল ?
_১২ । তুমি বিয়ে করনি ?
_ওর নাম নীলা রেখেছো কেন ?আমার সাথে মিল রেখে ?
_জানিনা । আচ্ছা আজ বরং আসি । বলেই মিথিলা চলে যাচ্ছিল । নীল পেছন থেকে ডেকে বলল... _মিথিলা আমি আজও তোমার চিঠিটার উত্তরের অপেক্ষয় ।জানিনা বইটা আর তার ভাঁজে থাকা চিঠিটা পাব কি না । তবে কী উত্তরটা আজ বলে যাবে?
_এখন বলেইবা কী হবে । ভালো থেকো । আর শোনো,তোমার নামেই ওর নাম রেখেছি "নীলা"।আর ওর মাঝেই আমি তোমাকে খুঁজে পাই ।

মিথিলা চলে যায় । মেঘ বৃষ্টি খেলাচ্ছলে ভিজিয়ে দিয়ে যায় প্রকৃতি থেকে শুরু করে উত্তপ্ত রাজ পথ,অলি-গলি এমন কী বৈদ্যুতিক তারে দাড়িয়ে থাকা ঐ কাকটা কেউ । আর বৃষ্টির প্রতিটা ফোটার ছন্দে কেউবা লিখে কবিতা,কেউবা সাজায় তার সুপ্ত স্বপ্ন গুলো কে বৃষ্টির র্স্পশে,আর কেউবা শুধুই কাঁদে সবাইকে আড়াল করে ।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
Prianka Cruze খুব সুন্দর হয়েছে।।।
কেতকী মণ্ডল মন খারাপ করা লেখায় ভোট রইল।
মোহাঃ ফখরুল আলম ভাল লেগেছে। ভোট দিতে মন চায়। আমার কবিতা পড়ার আমন্ত্রণ রইল।
রুহুল আমীন রাজু সুন্দর প্রেক্ষাপটের গল্প...ভালো লেগেছে. আমার পাতায় আমন্ত্রণ রইলো.
ফেরদৌস আলম ভালো লাগলো গল্প !
ইমরানুল হক বেলাল সুপার গল্প। ভালো লাগলো। আমার পাতায় আমন্ত্রণ।
সাগর সোহাগ ভালো লাগলো
গোবিন্দ বীন ভাল লাগল,ভোট রেখে গেলাম।আমার কবিতা পড়ার আমন্ত্রন রইল।

২৮ মার্চ - ২০১৬ গল্প/কবিতা: ১ টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের আংশিক অথবা কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী থাকবে না। লেখকই সব দায়ভার বহন করতে বাধ্য থাকবে।

প্রতি মাসেই পুরস্কার

বিচারক ও পাঠকদের ভোটে সেরা ৩টি গল্প ও ৩টি কবিতা পুরস্কার পাবে।

লেখা প্রতিযোগিতায় আপনিও লিখুন

  • প্রথম পুরস্কার ১৫০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • ্বিতীয় পুরস্কার ১০০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • তৃতীয় পুরস্কার সনদপত্র।

বিজ্ঞপ্তি

“ডিসেম্বর ২০২১” সংখ্যার জন্য গল্প/কবিতা প্রদানের সময় শেষ। আপনাদের পাঠানো গল্প/কবিতা গুলো রিভিউ হচ্ছে। ১ ডিসেম্বর, ২০২১ থেকে গল্প/কবিতা গুলো ভোটের জন্য উন্মুক্ত করা হবে এবং আগামি সংখ্যার বিষয় জানিয়ে দেয়া হবে।

প্রতিযোগিতার নিয়মাবলী