বছর বিশেক হবে আবার দেখা যবে
ভাবছি না হয় মিলিয়ে নেবো
বাঁকী হিসেব তবে।

চিঠি দিয়ে সেবার, ফেললে কেমন জালে,
ভাবছি তখন আপন হলে লগন আসে কবে
গুণছি প্রহর তখন সানাই বাজে কখন,
তারই সেই ফাঁকে ধরলে গিয়ে তাকে
কবুল তোমার সারা আমি তুমি হারা !
বলিনি কিছুই আর, কি-ই বা ছিল বলার
তুমিই যখন ছিড়লে বাঁধন, দূরের আমি হলাম তখন
মন যদি বা নাইবা বোঝে, নয়ন মাঝে অশ্রু নাচে
তবু তখন তুমি, নওতো আর আপন।

বিচ্ছেদের রেখা টানলে সেবার, এবার আবার দেখা
বললে আমায় ভালোবাসো, করবে না আর একা
তাকেও যে ভালোবেসেই করেছিলে বিয়া
সেও আছে আমিও থাকি, এটাই পরকীয়া।
মিলে নিকো হিসেব তবু জানি আমি
ভালো তুমি বাসোনিকো-- না তাকে না আমাকে,
বেসেছি ভালো আমি।

নাইবা হলো সে ঘর আমার, নাইবা ভালোবাসা--
ভালোবাসার ছল, ঘর না হওয়াই চল
বোঝনি আজও তুমি, ভালোবাসার মানে,
প্রীতির সে বাঁধন, টানলে আরও বাড়ে
দিয়েছি আমি ঢিল-- ভাবি না আর সেকাল
যে কালেতে তুমি আমার করেছিলে বেহাল।

এখন ভালোই আছি আমি--
তুমি বলো 'ভালোবাসি,' আমি ভাবী জানি।
হারানো সে ভালোবাসা কেমনে আবার ধরি
ঘর হারাবে সে-- যে তোমার আপন জন,
আমারও কী ঘর হবে আর, যে করেছে আমায় পর--
তাকে নিয়েই ঘর?

যার শনেতে সেজেছিলে বর, আজও তারই থাক না সে ঘর
ভালোবেসেছিলাম যাকে আমি, সে আজকের নওতো তুমি--
সে আমার কিশোর বেলা, অবুঝ ভালোবাসা।
এবেলার তোমাকে সেই বেশী চেনে, সেই আপনজনা,
নই তা আমি !!