এই কথাগুলো না হয় অারও পরে হোক।
অাগে জেনে নিই,
অামরা কী সত্যিই দেশ কে ভালোবাসি!?
সে দিন ষোল ডিসেম্বরে নব্বই হাজার শত্রুসৈন্য
সদ্য জন্মানো এক দেশের কাছে করেছিলো
অাত্মসমর্পণ।
বাংলাদেশ রাখা হোলো যার নাম,
এ দেশের স্থপতি কে অামরা কতোটা চিনতে পেরেছি অাজও?!

উত্তর দাও জনতা,
তোমাদের তোতলামিগুলো সরিয়ে রাখ।
টক শোর ইন্দ্রজাল ছিঁড়ে দেখ
দেশকে কী সত্যিই ভালোবাসো?

তবে স্মরণ করতে পারো?.
বীরশ্রেষ্ঠ মতিয়ুর, বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দীন
ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ, রুহুল অামীন,
সিপাহী মোস্তফা, সিপাহী হামিদুর
মুন্সি অাবদুর রউফ কে??

মেতে উঠছো কাদের প্রলাপে অপলাপে!!
ওরা ছিলো যোদ্ধার সম্মানে,
বীরশ্রেষ্ঠ, বীরউত্তম, বীরবিক্রম, বীরপ্রতীক।

বিস্মরণের খেয়াপারে পাঠানো হোলো অার দুজনের
সম্মান।
সে দাগ মুছেনি এ মাটি রয়ে যাবে বহমান।

বিধাতার ফরমান হাতে এরাই দিয়ে গেছে
এ দেশে সোনার হরিণ।
তিমি, অামি, সে, অামরা পুড়ছি, অামরা পুড়ছি তার
দলিল দাস্তান।।