আজো আমার ঘুম ভেঙে যায় সেই দুঃস্বপ্নে,
আজো আমি শুনি সেই করুণ আর্তনাদ।
যেন কোনো অনাদি স্রোতধারায় ভেসে আসে
আতঙ্কিত বিক্ষত সেই মুখগুলো -

সেই ষোড়শী কিশোরী-
যার চোখে ছিল অনিশ্চিত আগামীর স্বপ্ন;
সেই নবপরিণীতা-
প্রিয়তমের প্রত্যাগমনের প্রতীক্ষায় উদগ্রীব;
সেই গৃহবধূ-
চিরদিন যে রোপন করেছে ভবিষ্যতের বীজ;
সেই প্রৌঢ় রমণী-
যার চোখের সামনে হত্যা করা হয়েছে তার সন্তান;
সেই অসহায় বৃদ্ধা-
যার একমাত্র বাস্তুভিটা জ্বলে উঠেছে লেলিহান শিখায়-
সকলেই ফিরে আসে সেই অনাদি স্রোতধারায়।
হৃদয়ের পুঞ্জিভূত ঘৃণা অনল হয়ে ঝরে পড়ে দৃষ্টিসীমায়-
দগ্ধ করে আমার অভিশপ্ত অন্তরাত্মা।

আর তাদের যোনিদ্বারে জেগে ওঠে
ধ্বস্ত স্বদেশ।।