দুরন্ত মেঘগুলো ভালোবেসেছিলো এই পৃথিবীকে
ভালোবেসে এসেছিলো শ্রবান আযাঢ আর বার্ষার দিনে
ঝরেছিলো বৃষ্টি হয়ে অঝরে শ্রাবন ধারায় বাদলা দিনে
পাগলা হাওয়ার প্রেমের গভীর মমতায় আর আলিঙ্গনে।
ধরনীর উত্তপ্ত হৃদয়কে শান্ত করে ফুটেছিলো কদম ফুল ।
নদীতে ভাসছে ভালোবাসার নীল পদ্ম, হারিয়ে তার কুল।
হায়! আমার এই সাত জন্মের ভালোবাসা
কালনাগীনী বিষ আর সর্বনাশা ছারা কি ছিলো আর ভ’ল।
মেঘগুলো পবিত্র স্নানে বৃষ্টি হয়ে ধুয়ে মুছে পৃথিবীকে
করতে চেয়েছিলো শান্ত আর পবিত্র ।
হায় পৃথিবী কৃত্রিম আলোর ঝলকানিতে জ্বলসে উাঠেছে পৃথিবীর আবেগ
চাকচিক্কের মাঝে ধিক্কার হয়ে যায় বৃষ্টির সকল আশা।
রয়ে যায় স্মৃতি আর বৃষ্টির বিধ্বস্ত ভালোবাসা ।