কোন এক সোনালি বিকেলে বলেছিলে-
আমার রেশমী একঢাল চুল তোমার খুব প্রিয়,
তাই নির্মম কেমোতে ঝরে যাওয়ায়
ওসব হারানো গৌরবের সাথে হারিয়েছি তোমাকেও।
নার্সের সযত্ন পরির্চযায় এ দেহ কর্কট আক্রান্ত পরবাসী,
আমি কিন্তু তোমায় আজও অনেক ভালোবাসি ।

মরণরোগে লালিমা হারিয়েছে এ মুখ যাকে একদা
বহু কাব্যিক পঙ্কতিতে সাজিয়েছিলো তোমার মুগ্ধচোখ।
বিশ্বাস করো , ক্যান্সারে অতটা বিধ্বস্ত নয় এ শরীর-
যতটা অবনমিত হয়েছিলাম তোমার প্রস্থানে-
আমার কুঞ্চিত ওষ্ঠ যখন হারিয়েছে বৈধ চুম্বনের অধিকার ।
এ কুরূপী হাতে সূচের ফোড়, ফ্যাকাশে - আজও সজীব হয়ে উঠতে পারে,
-একবারটি ধরতে যদি তা আলতো করে....।

প্রেম নাকি অবিনশ্বর , কত কত কথা ,ছবি, গান -একে ঘিরে,
জীবনসাথী হয়ে একদিন শুনিয়েওছিলে-তাহলে কেন এখন এমন প্রত্যাখ্যান?
পরিবারের প্রিয়জন, কত আয়োজন ,জানা অজানা অনেক মুখের ভিড়ে ,
পোড়া কপালে আমার শ্রান্ত চোখ শুধু একজনকেই খুঁজে ফেরে।
মরণ পর্যন্ত থাকবে সাথী হয়ে গোধূলী বেলাকে সাক্ষী রেখে তোমার সেই শপথ,
আজ এতটুকু ঝড়ে দুভাগ হয়ে গেলো সেই আপাত অবিচ্ছিন্ন পথ।
সত্যি এই কালব্যাধি আর সারবোনা,
তবু একথা এভাবে জানাবারও তো কোন প্রয়োজন ছিলনা।