কমলিনীর কোমল ভৈরবে
বিষণ্ণতা ঝেড়েঝুড়ে তাড়িয়ে দূরে
আমি জেগে উঠি প্রভাতী অবাক লগ্নে
পাকা ধানে শিশিরের নিঃশব্দ পতনে

প্রভাত বাদন ঈশ্বরীয় কোমলতা ঘিরে
আনন্দভাব অনিন্দ্য পূজনীয় সুরে
কোমল চিত্ত অন্তরা হতে উত্থিত
আলাপে আলাপে হয়ে ওঠে তন্ময়
সাধ্য কার থামায় তারে কোমল গান্ধারে
কমলিনী ইমন হয়ে কোমল হয়
চাদের আলো খেলানো শুরকির চত্বরে ।।