দেশ – তুই নিঃশব্দ নিরব ঘাতক হয়ে যা
অগ্রহায়ণের এই শিশির ভেজা চরাচরে
শালিখের রক্তে ভাসুক ঈষৎ ভেজা মাটি
পরতে পরতে জমেছে পাপের আস্তরণ
এক কোদাল পরিমান দিলে ছেঁচে হবেরে কেমন !

আমি ভাবি অবাক মনে
তাকিয়ে আকাশ পানে
কেমনে কামারশালায় জ্বালিয়ে এ মন
বারে বারে চুবিয়ে পানিতে
করেছি নিরেট লৌহখণ্ড

তুইও তাই হ’ দেশ ! তুই বাংলাদেশ !
বিধ্বস্ত দেহ কাঠামো কম্পমান থরো থরো
পাতকের উল্লাস পতিতার শীৎকার
ডাকাতের হুঙ্কার বেনোজলে ভেসে যায়
মরা চাঁদ , ডাহুক নিরব পাতার ফাঁকে ।

জেগে ওঠ বাংলাদেশ , জেগে ওঠ
প্রায় আটচল্লিশ ছুঁই ছুঁই একদা তাগড়া জোয়ান
মিন মিন করে বলে পৃষ্ঠদেশে ছুরি নিয়ে শুয়ে আছি
বেদনা আমার বড্ড বেদনা সারা শরীর জুড়ে
ওষুধ – পত্তরে আর হয়নাকো কাজ
রোগ শোক চলেছে বেড়ে নির্বিবাদ নির্ঝঞ্ঝাট ।

আমায় ভালোবাসো তুমি??
হতবাক আমি – বলি ‘হুম তা বাসি’

তবে দাড়াও আমার পাশে করো প্রতিবাদ
হাঁক দাও স্বজনেরে জলদ গম্ভীর ৭১এর স্বরে ।।