ধুরন্ধর বা দুর্দান্ত নয়
তবে পুকুরের শান্ত জলের মত
নিঃশব্দ কৈশোর ছিল আমার
হতবিহবল হয়ে চেয়ে দেখা
গাছগাছালি বাছুর আর মাছের খেলা
অবাক তাকিয়ে দেখা রাস্তার পিপ পিপ গাড়ি
ফেরিওয়ালার কাগু য়া য়া য়া য়া জ চিৎকার
ডিম খাব বায়নায় মুরগীর খোপের মুখে বসে থাকা
রাস্তায় হরি বোল বলে লাশের চলে যাওয়া
ইস্কুলে বেতের ভয়ে পড়ে ফেলি সব বই
দাড়িয়ে দেখি সহপাঠীদের উদ্দাম খেলা ।
টেনে নিল মিছিলে একদিন ক্লাস থেকে
শ্লোগানে শ্লোগানে উচ্চকিত চারিদিক
মুক্তি চাই মুক্তি চাই দিতে হবে দিতে হবে
বাড়িতে ভাত খেতে বসে মনে হল মিছিলের কথা
মাকে বলিনি , কেউ দেখেনি, না কেউ না
মনে হল আমি আরেকটু বড় হয়েছি
বাবা চলে গেলেন বদলে দিয়ে আমাদের জীবন
মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্কালে গুলির মুখে বাড়ি ফিরে
আমি আয়নায় দেখলাম মুখে পাতলা ক্ষীণ গোঁফের ইশারা ।।