স্বাধীনতা - বড্ড ঋণী করে গেলে
শোধ দেব কোন সিন্ধুক হতে !
জন্ম থেকে জন্মান্তরে শেষ হবার নয়
আজ আবার দাড়িয়ে সদর রাস্তায়
ভাবাতুর –শাসক শোষক নয় নিরাপদ
শেষ সম্বলটুকু যা আছে জমা
আমার ঘামের জমানো ক্যাশে
ফেলেছে এবার তপ্ত নিঃশ্বাস তারা ।
দুবারের খাবারে তরবারির আঘাত
একবার খাব আর পান্তাটুকু দিয়ে দেব
রাজাসনে করবে আহার ইলিশের টুকরো পাতে
আহা! স্বাধীনতার সুফল নিয়ে কাটে তাদের নিরুদ্বিগ্ন জীবন ।

পদাঘাতে সমাজ বিভক্ত জাতিতে সংঘাতের বহ্নিশিখা
আর কত বিপ্লব , কত লহু আর কত যাবে প্রান।
ঈশ্বর উধাও কে দেবে আমাদের ত্রান
ক্ষমা করে দিও দেশ – ছায়া ঘেরা সেই সে গ্রাম
অক্ষমতার তোড়ে বিধ্বস্ত আন্তঃকাঠামো
ঋণী হয়ে রইলাম অনন্তকাল হে রনাঙ্গনের যোদ্ধা ।।