লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২১ এপ্রিল ১৯৮৪
গল্প/কবিতা: ৫টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftদিগন্ত (মার্চ ২০১৫)

দিগন্তের স্মৃতির ক্যানভাসে
দিগন্ত

সংখ্যা

মোট ভোট

পবিত্র বিশ্বাস

comment ১১  favorite ০  import_contacts ৮৭৭
অসীম নীল আকাশের পাটে ভেসে ওঠে কত স্মৃতি,
বাংলা মায়ের সন্তান মোরা মনে জাগে শত আর্তি।
মনে পড়ে যায় বাংলা ভাগের নিষ্ঠুর সব শর্ত,
পারিনি আমরা রক্ষা করতে অখণ্ডতার গর্ব।
এখনো মোরা কাঁটাতার ভেঙে ছুটে যেতে চাই নিমেষে,
প্রশাসনের চোখরাঙানিতে ডরি আশাহত হই শেষ।
জানি না কভু ফিরে পাব কি না জন্মভূমির ছোঁয়া,
বছর তিরিশ কেটে গেল তবু পাইনি আল্লার দোয়া।
দেখতে দেখতে আজ বড় হয়ে গেছি নিয়েছি পড়ানোর ব্রত,
অমর একুশের আন্দোলনের কথা বলেই যাই শত শত।
আজো শোনা যায় ঘুমপাড়ানিয়া গান শান্ত স্নিগ্ধ দুপুরে,
একুশের প্রভাতফেরী মনে দোলা দেয় বাংলা ভাষা উচ্চারিত হলে।
মুক্তিকামী বাংলার বুকে আজও ওঠে বীর শহিদের পদধ্বনি,
শত লাঞ্ছনা, অত্যাচার সয়ে দিয়েছে তারা প্রাণের অঞ্জলি।
হৃদয় দিয়ে রাখবো মোরা বাংলা মায়ের সম্মান,
মোদের গরব, মোদের আশা মোরা এক জাতি- এক প্রাণ।
প্রার্থনা করি দিগন্তের ঐ সীমারেখা যাক মুছে,
সকলের তরে সকলে আমরা মিলেমিশে থাকি সুখে।
বাংলা ভাষার স্বর্ণযুগে বসে সতত স্মরণ করি,
বাঙালির হৃদে বেঁচে থাকে যেন একুশে ফেব্রুয়ারি।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement