নিঃশ্বাস বন্ধ করে শুনি হৃৎপিণ্ডের ধুকধুক,
অনুভব করি ইন্দ্রিয়ের চেতনা।
বেঁচেই তো আছি আমি......
তবে কেন শবের নিস্তব্ধতা আমার সমস্ত অস্তিত্ব জুড়ে?
অনুভব করি,
আজ সৃষ্টির ধবংসযজ্ঞে মেতেছে আমার চিরচেনা এ পৃথিবী।
টুপটাপ ঝরে পড়ছে সঞ্জীবনী ধারা, আমার চেতনার পেলব ভূমিতে;
তন্ত্রীতে, গ্রন্থীতে, ইথারে ইথারে......।
হৃদয়ের বেলাভূমিতে আছড়ে পড়ে একের পর এক ঢেউ,
শুনতে পাই অজস্র ইচ্ছের ছটফটানি।
যুগান্তরের মধ্যবিন্দুতে দাঁড়িয়ে নিজেকে আবিষ্কার করি,
অচেনা, একাকী...
নাকি শংকিত?
আমি কি তবে জীবন্মৃত?
চিরপরিচিতের মাঝে অভ্যস্ত হয়ে ওঠা আটপৌরে কোন সত্ত্বা?
নিজের চেনা পৃথিবীর বদলে যাওয়ার এই প্রবল আকাঙ্ক্ষায়,
কুণ্ঠিত কোন অতীত?