আমি কবি ছিলাম;
তুমি উপমা হয়ে আমার কবিতার প্রতিটি চরণের মাঝে ছিলে মিশে।
আমি ফেরিওয়ালা হয়েছি যখন-
তুমি,তুমি ছিলে আমার মাথার ঝুড়ি,মনে নেই !
খুব কাছে ছিলে, একদম কাছাকাছি।

আমি বাতিঘর ছিলাম;
তুমি তাতে আলো জ্বেলেছ,
আমার বুকের অসীম আঁধারকে নিমিষেই করেছিলে গ্রাস সেদিন।
তখন আমি যৌবন উন্মাদ এক যুবক,
তুমি স্বপ্ন হয়ে আমার দু'চোখের পাতায় ছিলে,
অসময়-তবুও ছিলে।
প্রচন্ড হতাশায় আমি পৃথিবীর বুকে আঁচড় কেটেছি যখন-
তুমি তখন শান্তির বাণী শুনিয়ে আমাকে আশাবাদী করেছিলে।

অতঃপর, আমি মিসিসিপি হয়ে পৃথিবীকে যখন আমার অস্তিত্বের প্রমাণ দিয়েছি -
তুমি উত্তাল তরঙ্গ হয়ে আমার বুকের মাঝে কাঁপুন তুলেছিলে,
এ অন্যায়- তা জেনে, তবুও ছিলে,পাশে ছিলে।
অবশেষে- আমার অসুখে চিবুক যখন সুখের খুঁজে নিজেই তোমার কাছে এসেছিল,
তুমি এক মূহুর্তও বিলম্ব না করে-
তোমার দু'বাহু আকঁড়ে আমাকে শক্-ত করে জড়িয়ে ধরেছিলে
তুমি ফেরাও নি,তুমি পারো না...