লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২১ ফেব্রুয়ারী ১৯৯১
গল্প/কবিতা: ৪টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftব্যথা (জানুয়ারী ২০১৫)

বেদনার জীবাশ্ম
ব্যথা

সংখ্যা

মোট ভোট

আল ইমরান

comment ১১  favorite ০  import_contacts ৯৪০
পাথরটা কেবল গড়িয়েই চলেছে।
সমতল ভূমি বলো, আর চড়াই উৎরাই
কিংবা নদীর তীরের নরম পলিমাটি,
সবখানেই গড়িয়ে পার হয়ে গেছে
রুক্ষ-মসৃণ, কঠিন সেই পাথরটা।
অথচ শেষ কালে কিনা-

ঢালু একটা পাহাড়ি উপত্যকায় জন্মানো শ্যাওলায়
হোঁচট খেয়ে থমকে গিয়ে ছিল পাথরটার গড়িয়ে চলা।
পাথরটা ভেবেছিল, থমকে যখন গিয়েছি,
হয়তো একটু আদর মাখা ভালোবাসা,
একটু নরম স্নেহের উত্তাপ,
নিদেন পক্ষে উষ্ণ সমাদর তো পাওয়া যাবেই।

কিন্তু পাথরের ভাবনাটা ভুলছিল।

পাহাড়ি উপত্যকার সেই শ্যাওলার খাঁজ
পাথরটারও পর কঠিন প্রতিশোধ নিলো।
কেন নিলো? সেটা বোধ হয় শ্যাওলাও জানেনা।
কঠিন পাথরটার বুকে প্রথমে শ্যাওলা জমে গেল
পাথর ভাবল সবুজ শ্যাওলা তার রুক্ষ কঠিন বুক
ভালো বাসার শ্যামলিমায় ভরিয়ে তুলবে।
কিন্তু পরক্ষনেই আবার পিছলে গেল পাথরটা।
আবার শুরু হলো তার গড়িয়ে চলা।
অনন্তকাল ধরে গড়িয়ে চলছে পাথরটা..

পাথরটির বুকের গভীরে সবুজ একটা পোড়া দাগ।
অনাগত দিনের প্রত্নতত্ববিদরা হয়তো বলবে-
পাথরটির বুকে জীবাশ্ম রয়েছে।
কিন্তু তারা কী জানতে পারবে?
এ জীবাশ্ম গড়িয়ে চলা পাথরের
বুকে জমা একমাত্র ভালোবাসার শ্যাওলা।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement