যদি নাইবা জানে আকাশ,
সেদিন ছিলো জ্যোৎস্না স্নান দুপুর।
ক্লান্ত রতো চোখে তোমায় দেখেছিলাম,
উদম্ম নিত্য, জাগ্রত প্রাণ, নাচিয়ে নূপুর।

কি যে বলি? এখন তোমায় জরিয়ে পাঁজর
আমি শূন্য ভাবি, স্পর্শ হীন ভূত
পাবো কি, ছুঁয়ে তোমায় বন্ধী দশায়।

চাইবে না কেউ আমার মতো, এমন তোমায়
দেখবে না কেউ আমার চোখে এ সহসায়,
ডাকবে না কেউ আমার মতো ভূত বলে আর
ধরলাম বাজী এ জীবনে মাঝ দরিয়ায়।

কতক বোঝাবো, এ নয় মিথ্যে প্রেম আমার
বাকি যদি থাকে কিছু বলতে পারো?
বিশ্বাসের পথে তুমি নামতে পারো?
আমার পৃথিবীর হাতে, হাত রাখতে পারো।

ভূতের ঐ চশমা পরা দারুণ লাগা,
এলোমেলো চুলগুলো তার ফাল্গুন লাগা
ভুতেরই স্পর্শ গন্ধ মাখা
কি করে ভুলতে বলো স্বপ্ন আঁকা।

এখন আর তাবিজে বলো কি আসে যায়
কালো সুতো ছিঁড়ে গেছে, কি ক্ষতি হয়
হৃদয়ের দখিন বাঁকে তোমার ছবি,
ভূতের চশমা চোখে হৃদয় হারায়।