এত অস্থির কেন তুমি লাবণ্য?
প্রশ্নটা শুনে, আয়না'র সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখি
চোখের নীচটায় কালি পড়ে গেছে; রুক্ষ চুলগুলো নিঃশব্দে ঝরে পড়ছে
মলিন মুখটাতে অযাচিত বয়সের ছাপ
পুরো শরীরের অমসৃণ চামড়ায়, খেলা করে যত রক্তের দাগ!

আবারও প্রতিবিম্বটা প্রশ্ন করে, এত অস্থির কেন তুমি লাবণ্য?
কেউ কি জানে, মাঝরাতে সিগারেটের ধোঁয়াগুলো
আমাকে কি ভীষণ পোড়ায়?
বিয়ার, ওয়াইনের গ্লাসে ঢেলে দিতে হয় অপ্রিয় সব আবেগ
জমকালো পার্টিতে জড়িয়ে নিতে হয় মেকাপের প্রলেপ
লোভিত চোখগুলো গিলে খায় লাবণ্যের যত লাবণ্য!
প্রিয় মানুষটা আমাকে নিয়ে ইচ্ছেমত সাপলুডু খেলে
তবুও কি বলবে আমি এত অস্থির কেন?

আমি পারিনা, স্রোতের প্রতিকূলে গা ভাসাতে আর পারিনা!
আমি চাই, একথালা গরম ভাত নিয়ে প্রতিটা রাত
তাঁর জন্য অপেক্ষা করি!
খোলা বারান্দায় কফির পেয়ালায় চুমুক দিয়ে
তাঁর বুকে মাথা রেখে জোছনায় বাসর সাজাই!
ভালবেসে, তাঁকে নিয়ে আমি প্রকৃতির সাথে মিশে যাই!
আমি দারুণ স্থির হতে চাই,
আমি স্থির হতে চাই......