আহারের ব্যাকরণ

ক্ষুধা সংখ্যা

আহমাদ মুকুল
  • ১১৩
  • 0
  • ১২
পিপড়ের মত, শরীরের চেয়ে কয়েকগুণ বোঝা কাঁধে
ক্লিষ্ট অথচ নির্মল হাসি, প্রশ্নের উত্তরে
দাঁত বের করে বলে- পেটের ধান্দায় চলি….।
পেটমোটা পোর্টফলিও, কাল গ্লাস, দরজা খুলে
গাড়িতে উঠতে উদ্যত, উদ্ধত শিল্পপতি;
চর্চিত গুফো হাসি, তরল কণ্ঠ- আমাদেরও বাঁচতে হয়….।
বুঝলাম, এসব নয় শুধুই শক্তি ক্ষয়
ক্ষুধা-ই চালিকা শক্তি; শ্রম ও শিল্পের প্রধান জ্বালানী।

বন্ধ ইঞ্জিন বাহন, ঠেলে নিয়ে চলেছে চালক
যন্ত্রের পেট খালি, তাই চলতে গররাজি।
আহারের খোঁজে যত প্রাণি ও মানব
ফুয়েল পেলে ছুটে চলে যন্ত্র দানব।
খাদ্য নিয়েই গড়ে উঠে নাগরিক ইকো-সিস্টেম
পেট চক্রে বাঁধা পরিবেশ প্রতিবেশ।

ক্রেতাকে গিলবে বিক্রেতা, বিক্রেতাকে পাইকার
শ্রমিককে গিলে খাবে মালিক, কর্পোরেট কালচার।
বাদী-আসামী মিশিয়ে ককটেল গিলবে রক্ষাকর্তা
কৃষকশুদ্ধ মাটি গিলে খাবে, ফসলের প্রাণপাত
অগ্নিগিরির জ্বালামুখ ব্যাদান টাইকুন ভূমিডাকাত।

রাজনীতি অর্থনীতি সমাজনীতি নামের সভ্য নীতিতে
চলছে প্রতিনিয়ত এসব রীতিসিদ্ধ ভক্ষণ
মূঢ় বিস্ময়ে দেখি, ভ্রষ্টাচার…নীরব গলাধঃকরণ!
খাদ্যের নেশায় চলছে এদেশ, লড়ছে বিশ্ব, ঘুরছে এ গ্রহ
মন ও দেহের অতুষ্টিতে ঘটছে অহরহ বিদ্রোহ।

বাহারী ভোজের মুহ্যমান স্বপ্ন!
ক্ষুধা পেটে লিখে এই অভাজন, রকমারী আহারের ব্যাকরণ।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
মোঃ শামছুল আরেফিন কিছু কঠিন সত্য তুলে ধরেছেন। সমাজ পরিবর্তনের গণ মানুষের কথা থাকবে এমন কবিতাই তো চাই।
আহমাদ মুকুল উদ্দেশ্য, কারণ ব্যতীত একটা ধুলো কণাও নড়ে না। সূর্যের সাথে পৃথিবীর সম্পর্ক কী? আলো, তাপ, জীবনীশক্তি...মোট কথা শক্তি সম্পদের মূল আধার সূর্য, তার প্রতি মহাকর্ষ নামের কোন স্নেহবন্ধনে আমাদের এই গ্রহ আটকে নেই, বরং আটকে আছে ঐসব প্রাপ্তির লোভে...এভাবে নিতে পারে ‘গ্রহের ঘূর্ণন’ ব্যাখ্যা। চে’র গেটআপে নতুন রনীল...আমার আগামী সংখ্যার গল্পের কিছুটা অগ্রীম স্বাদ দিয়ে দিলাম। হা হা হা।
রনীল এ সংখ্যায় বেশির ভাগ লেখা ধনী-গরীবের বৈষম্য নিয়ে লেখা। সে তুলনায় আপনি আরেকটুঁ উপর থেকে ব্যাপারটা বিশ্লেষণ করেছেন। শ্রম বলেন, শিল্প বলেন- ক্ষুধাকে অস্বীকার করার উপায় নেই... আমাদের নাগরিক ইকো সিস্টেমটি যে ক্ষুধা কে কেন্দ্র করে পরিচালিত হচ্ছে, সেটা কখনো ভেবে দেখিনি... হয়তো অন্নের অভাব নেই বলে এই জিনিসগুলো কখনো মাথায় আসেনি... সব না হয় বুঝলাম- খাদ্যের নেশায় গ্রহ ঘুরছে! কিভাবে? অনেক কিছু চিন্তা করার উপকরন আছে কবিতাতে... অসাধারণ বলতে দ্বিধা নেই...
আহমাদ মুকুল অেনক ধন্যবাদ, সুমি।
সুমননাহার (সুমি ) ভালো খুব ভালো লাগলো আপনার কবিতাটি আপনার মত যেন লিখতে পারি আমাকে সেই দওয়া ও দোওয়া দেওয়া যায় কি?
বিন আরফান. ছাত্র জীবনে এই ব্যাকরণের জন্য কতবার যে কান ধরে উঠবস করেছি ! এইবারই শুধু বেঁচে গেলাম.
আহমাদ মুকুল বার বার আবৃত্তি করে ছন্দের দুর্বলতা ধরার এই ব্যাপারটি খুব ভাল, বিন আরফান।...‘কাল’ এখানে কৃষ্ণবর্ণ অর্থে বোঝানো হয়েছে, সেক্ষেত্রে বানানটা ‘কাল’ই থাকবে, কিন্তু উচ্চারনে ‘কালো’ বলতে হবে। ‘কাল’ যখন সময়, দিন কিংবা ঠান্ডা অর্থে ব্যবহার হয়, তখন উচ্চারনে ‘কাল্’ বলতে হবে। যাই হোক, তোমারটা আমারটা কোনটাই পণ্ডিতি না, যার যার জ্ঞানকে বিনিময় করার চেষ্টা মাত্র।
বিন আরফান. আবার পড়ে গেলাম. আবৃত্তি ও করলাম. / কাল গ্লাস " এখানে ধাক্কা খেয়েছি আবৃত্তির সময়. কালো গ্লাস হলে ভালো হত বলে মনে হয়. অবশ্য এখন সেই ধাক্কা খেতে হয় না. যা একবারই হয়েছিল. যাতে কোনবারেই এরূপ না হয় সে দিকে কবিকেই খেয়াল রাখতে হবে. পন্ডিতি করে ফেললাম বুঝি. করবনা কেন ? পন্ডিতের ভাই বলে কথা.
আহমাদ মুকুল অনেক ধন্যবাদ তাবাসসুম এবং মোর্শেদ।
মোরশেদুল kabir খাদ্যের নেশায় চলছে এদেশ, লড়ছে বিশ্ব, ঘুরছে এ গ্রহ মন ও দেহের অতুষ্টিতে ঘটছে অহরহ বিদ্রোহ। ====মুকুল ভাই সালাম ,পছন্দ হয়েছে এই লাইন গুলো অসম্ভব ভাল লাগল।

১৯ জানুয়ারী - ২০১১ গল্প/কবিতা: ২ টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের আংশিক অথবা কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী থাকবে না। লেখকই সব দায়ভার বহন করতে বাধ্য থাকবে।

প্রতি মাসেই পুরস্কার

বিচারক ও পাঠকদের ভোটে সেরা ৩টি গল্প ও ৩টি কবিতা পুরস্কার পাবে।

লেখা প্রতিযোগিতায় আপনিও লিখুন

  • প্রথম পুরস্কার ১৫০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • ্বিতীয় পুরস্কার ১০০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • তৃতীয় পুরস্কার সনদপত্র।

বিজ্ঞপ্তি

“অক্টোবর ২০২১” সংখ্যার জন্য গল্প/কবিতা প্রদানের সময় শেষ। আপনাদের পাঠানো গল্প/কবিতা গুলো রিভিউ হচ্ছে। ১ অক্টোবর, ২০২১ থেকে গল্প/কবিতা গুলো ভোটের জন্য উন্মুক্ত করা হবে এবং আগামি সংখ্যার বিষয় জানিয়ে দেয়া হবে।

প্রতিযোগিতার নিয়মাবলী