প্রিয়তমা,তোমার উৎসব হলো সাঙ
বর্ণিল গোধুলীর সাজ সাজ উৎসব মুখর দিনে,
চঞ্ছলা প্রাণ, মত্ত নীল নয়নায় ডেকেছিলে আমায়
আলো আঁধারের বদ্ধ দুয়ারে ,
তবুও জাগেনি এ হতভাগা প্রাণ।

এ অবেলায় পরিশ্রান্ত নিশিতে ¤্রয়িমান
কয়েকটি ধ্রæবতারা মতো জ্বলে
আমার অন্তিম দীপশিখা।
হেলায় জেগে আছি নি:সঙ্গ খেয়ালে
ভাঙ্গা চাঁদের মৃত জোৎ¯œায় ভেসে ওঠে
সাভারের সাদা সাদা স্তুপের লাশগুলো।
Ñ ক্ষমা করো প্রিয় অভিশপ্ত প্রতিচ্ছবিতে
ভুলে গেছি তোমার করুণার্ত চাহনি,
তার চেয়েও ঢের মলিন দৃষ্টি বস্তির ঐ
বালিকার ঁেপচুটি চোখে Ñ
ভাতের মতো সাদা
চারিদিকে শ্বেত অট্রালিকা গুলো।

শুধু তুমি আছো বলে ,
আজ সারা নিশি জুড়ে জেগে থাকবো
ঈশ্বরের প্রত্যয় নিয়ে যেমন করে জেগেছিলো
ডাস্টবিনে আধুরীর বর্ণহীন জীবন্ত লাশ অথবা
কাঁটাতারে জুলন্ত ফেলানরি নীল বাষ্পরুদ্ধ আকুতি।
পংকিল শকুনের বুভুক্ষ দৃষ্টি জুড়ে নামবে ভোর
সুযাস্তের মতো পুরনো এ পৃথিবীতে
তবুও আশায় থাকি।
আজি এ উৎসব মুখর দিনে
প্রিয়তমা, হে দিশাহারা পথিক
এসো মোর ক্ষুর্ধাত আলিঙ্গনে।