প্রান রস

কোমলতা সংখ্যা

মোঃ মোজাহারুল ইসলাম শাওন
  • 0
মানব মনের রসায়ন বোঝা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার ।এই রসে কখন প্রেম আর কখন নির্দয়তা ভর করে, বোঝা দায়।বিচিত্র এক খেলায় সারাক্ষন ডুবে থাকে মানুষ, কোন এক অনিয়ন্ত্রিত রসের সাগরে।সেই রসের প্রভাবে কেউ নিমিশেই মহান আবতার, কেউবা হৃদয়হীন পাষন্ড !

গত বুধবার ১০ মে ২০১৫ সন্ধ্যায়, ঘর গোছাতে গিয়ে ঠিক যেখানে বিছানা পাতছিলাম, তার শিয়রের দেয়ালে এক্টি বোলতার ঘর। বোলতা এক ধরনের বিষাক্ত মৌ বা পিঁপড়া। যার কামড়ে শরির ফুলে জ্বলতে থাকে। ঘর বেধেছে সুনিপুন মাটি দিয়ে, সুরক্ষিত সবল এবং শক্তিশালি।

কি মনে হল, দিলাম গুড়িয়ে। বোলতার ঘর ভাংতে আমার ১০ সেকেন্ড এর কম সময় লেগেছে।কাজের চাপে আর কিছুই খেয়াল করিনি।পরেরদিন বিকেলে ঘরে শুয়ে আছি দেখি এক্টি বোলতা, খুব বিমর্ষ চিত্তে আমার বিছানার উপর দিয়ে ঘুরছে। মনে কোন ক্ষোভ বা হিংসার লেস মাত্র নাই।মনে হচ্ছে সে খুব ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত।

আমি একবার তাকে তাড়িয়ে দিলাম। কিন্তু আবারো সে আমার বালিসের পাশে ঘুর ঘুর করতে শুরু করল। মনে পরল গতকালের ঘর গুড়িয়ে দেবার কথা। নিশ্চয় এইটি সেই বোলতা, যার ঘর আমি ভেংগেছি। এবার আমার মনে বেশ সহনাভুতির জম্ম হল। আমার কাছে এক চিমটি বা বড়জোর ১ মুঠো মাটি ছিল, বোলতার ঘরে। কিন্তু তিল তিল করে মুখে করে এই বিন্দু বিন্দু মাটি এনে সুনিপুণ দক্ষতায় নিশ্চিন্ত আবাস গড়েছিল। আমি মুহুর্তের প্রান রসের জোয়ারে তা ভেংগে দিয়েছি।

আমার মনটা খুব বিমর্ষতায় ডুবে গেল...মনে পরলঃ প্যালেস্টাইন বা মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধের কথা। যেখানে নির্বিচারে জনগনের তিল তিল করে গড়ে তোলা আশ্রয় নিমিশেই গুড়িয়ে দেয়া হয় নির্বিচারে নৃসংশভাবে; কখনো পুজিবাদি দুষ্টুচক্রদের নির্দয় খেলায় বা কখনো ধর্মীয় উন্মাদনায় নিরন্তর ঘটে যাচ্ছে। ব্যক্তিগত স্বার্থ পরতাও কখনো কখনো কাউকে না কাউকে গৃহহীন করে ছাড়ে। আমি কি নিজের জীবনের ছায়া দেখছিলাম সেই বোলতার শক্তিহীন চলনে?

কি জানি কি ! মানুষের মন বড় বিচিত্র। প্রান রস আসলেই বড় রংগ রসে ভরপুর। বৌ আমার বিষন্ন দৃষ্টিকে অনেকক্ষন ধরে লক্ষ্য করছিল। হটাত নতুন কেনা এরোসলের ডিব্বা থেকে কিছু স্প্রে করে দিল সেই মন মরা বোলতার উপর, বেচারা এক্টু লড়ে এক্কেবারে কুকুরে মুচড়ে মারা গেল। শেষ হলো তার আবাসন খোজার বৃথা চেষ্টা।

মানুষই পারে ভালবাসায় গড়তে, মানুষই পারে স্বার্থের জালে সব ধংস করে দিতে। শুধু পিছনে থাকে তাজা প্রান রসায়নের মহা কাব্যিক কর্ম পরিচালন।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
তাপসকিরণ রায় ভাল লেগেছে আপনার গল্প--দৃষ্টান্তমূলক কিছু কথা আছে। ধন্যবাদ।
কবিরুল ইসলাম কঙ্ক ভালো লাগালো । শুভেচ্ছা রইলো । রইলো আমার পাতায় আমন্ত্রণ ।
জুন ঠিক গল্পের প্রকৃত স্বাদ পেলাম না। গল্পকে সাবলীল ভাষায় উপস্থাপন জরুরী। এছাড়া ভালো প্রচেষ্টা। ভালো লাগা সাথে শুভ কামনা।
গোবিন্দ বীন ভাল লাগল,ভোট রেখে গেলাম।পাতায় আমন্ত্রন রইল।
সোহানুজ্জামান মেহরান রসে রসে পড়লাম। বেশ ভালো লিখেছেন। শুভ কামনা রইলো সর্বদা।

২৯ জুন - ২০১৩ গল্প/কবিতা: ১ টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের আংশিক অথবা কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী থাকবে না। লেখকই সব দায়ভার বহন করতে বাধ্য থাকবে।

প্রতি মাসেই পুরস্কার

বিচারক ও পাঠকদের ভোটে সেরা ৩টি গল্প ও ৩টি কবিতা পুরস্কার পাবে।

লেখা প্রতিযোগিতায় আপনিও লিখুন

  • প্রথম পুরস্কার ১৫০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • ্বিতীয় পুরস্কার ১০০০ টাকার প্রাইজ বন্ড এবং সনদপত্র।
  • তৃতীয় পুরস্কার সনদপত্র।

বিজ্ঞপ্তি

“ডিসেম্বর ২০২১” সংখ্যার জন্য গল্প/কবিতা প্রদানের সময় শেষ। আপনাদের পাঠানো গল্প/কবিতা গুলো রিভিউ হচ্ছে। ১ ডিসেম্বর, ২০২১ থেকে গল্প/কবিতা গুলো ভোটের জন্য উন্মুক্ত করা হবে এবং আগামি সংখ্যার বিষয় জানিয়ে দেয়া হবে।

প্রতিযোগিতার নিয়মাবলী